বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৪:২৫ অপরাহ্ন

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার যদুপুর গ্রামের রিপন করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। এমন মৃত্যুর খবর গ্রামে ছড়িয়ে দিলে পরিবারের লোকজন কবর খনন শেষ করেন। কবর খনন শেষে জানতে পারেন রিপন মারা যায়নি। ঢাকার একটি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছেন তিনি। পরে সেই খননকৃত কবরস্থানে কলাগাছের দাফন করা হয়। ঘটনাটি এলাকায় চাঞ্চলের সৃষ্টি করেছে।

স্থানীয়রা জানান, চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলার বেগমপুর ইউপির যুদুপুর গ্রামের সায়েদ মিয়ার ছেলে রিপন ট্রাকচালক গত ২৪ জুলাই করোনা আক্রান্ত হয়ে জীবননগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। সেখানে তার অবস্থার অবনতি দেখা দিলে পরিবারের লোকজন উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় নিয়ে যায়। সেখানে রিপনকে আইসিইউতে রাখা হয়।

গত বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০ দিকে ঢাকা থেকে তার স্বজনরা খবর পাঠায় রিপন মারা গেছে। দাফনের জন্য গ্রামে কবর খননসহ সব ধরনের প্রস্তুতি নিতে বলেন। পরদিন সকালে মরদেহ গ্রামে পৌঁছবে। এ খবর পেয়ে পরিবারজুড়ে যেমন পড়ে যায় কান্নার রোল সেই সঙ্গে সকালে দাফনের জন্য বাড়ির পাশে খনন করা হয় কবর। শুক্রবার সকালের ঢাকা থেকে আবার জানানো হয় রিপন বেঁচে আছে ওই হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি আছেন। মৃত এবং বেঁচে থাকার এমন খবর নিয়ে যদুপুর গ্রামে চাঞ্চলের সৃষ্টি করেছে। পরে খননকৃত কবরে কলাগাছ দিয়ে আক্ষরিক দাফন সম্পন্ন করেন গ্রামবাসী।

বেগমপুর ইউপি চেয়ারম্যান আলী হোসেন বলেন, রিপন করোনা আক্রান্ত হয়ে ঢাকার একটি হাসপাতালে আইসিইউতে আছেন। বৃহস্পতিবার রাতে পরিবারের লোকজন রিপনের মারা যাওয়া খবর পেয়ে পরদিন সকালে কবর খননও করে। আবার সকালে জানতে পারেন রিপন মারা যায়নি, বেঁচে আছেন। সেই খননকৃত কবরে কলাগাছ দিয়ে আক্ষরিক দাফন করা হয়।

তিনি আরো বলেন, মরদেহের জন্য কবর খননের পর মরদেহ কবর না দিলে সেখানে অন্যকিছু দাপন করা হয় বলে রীতি আছে বলে জানি। তবে আমার দেখা এই প্রথম।

আরও পড়ুন