মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৫০ পূর্বাহ্ন

ময়মনসিংহের ত্রিশালে ট্রাক চাপায় মায়ের পেট ফেটে জন্ম নেয়া সেই শিশু জন্ডিসে আক্রান্ত। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৫ নম্বর ওয়ার্ডে ওই নবজাতক চিকিৎসাধীন আছেন।

মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বিভাগীয় প্রধান (শিশু) ডা. নজরুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ওই শিশু ময়মনসিংহের লাবিব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। সেখান থেকে গতকাল সোমবার রাতে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হলে নবজাতকের জন্ডিস আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি জানা যায়। পরে আজ মঙ্গলবার ৫ সদস্য বিশিস্ট মেডিকেল বোর্ড গঠন করে চিকিৎসা দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে।

কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের এসোসিয়েট প্রফেসর ডা. কামরুজ্জামান বলেন, ওই নবজাতক আমার তত্বাবধানে শহরের লাবিব হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল। গতকাল তার জন্ডিসের লক্ষণ দেখা দিলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে জন্ডিসে আক্রান্ত হওয়ার বিষয়টি জানার পর মেডিকেল বোর্ড গঠন ওই নবজাতককে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (১৬ জুন) দুপুরের পরে উপজেলার রাইমনি গ্রামের ফকির বাড়ির মোস্তাফিজুর রহমান বাবলুর ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (৪০), তার অস্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রত্না বেগম (৩০), মেয়ে সানজিদাকে (৬) নিয়ে আল্টাসনোগ্রাফি করাতে ত্রিশালে আসেন। পৌর শহরের খান ডায়াগনোস্টিক সেন্টারের সামনে রাস্তা পারাপারের সময় ময়মনসিংহগামী একটি ট্রাক তাদের চাপা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই জাহাঙ্গীর আলম, স্ত্রী, রত্না বেগম মারা যায় এবং মেয়ে সানজিদা আক্তার গুরুতর আহত হয়।

এসময় ট্রাক চাপায় রত্না বেগমের পেট ফেটে কন্যা শিশুর জন্ম হয়। পরে আহত সানজিদা ও নবজাতককে নিয়ে ত্রিশাল উপজেলা স্বাস্থ কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক সানজিদাকে মৃত ঘোষণা করে নবজাতক বাচ্চাটিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করেন।

তবে, অতিরিক্ত যানজটের কারণে নবজাতককে চুরখাই কমিনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে সেখান থেকে চিকিৎসা দিয়ে ময়মনসিংহ মহনগরীর চরপাড়া এলাকায় লাবিব হাসপাতালে ভর্তি করেন। পরে জন্ডিসের লক্ষণ দেখা দিলে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতারে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন