শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে স্বামীর প্র’রোচণা ও ক্ষুধার জ্বালা সইতে না পেরে ১৫ মাস বয়সী শিশু সন্তানকে বাড়ির পাশের ডোবায় ফেলে হ’ত্যা করেছে গর্ভধারিনী মা রোকসানা আক্তার। এ ঘটনায় পুলিশ মাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার (১৯ জুলাই) দুপুরে উপজেলার কাশিনগর ইউনিয়নের অশদিয়া গ্রামে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কাশিনগর ইনিয়নের বারৈয়া গ্রামের সবজি ব্যবসায়ী আমান উল্যাহর মেয়ে রোকসানা আক্তারের সাথে গত কয়েক বছর পূর্বে বরিশাল থেকে আসা দিনমজুর ইবরাহিমের বিয়ে হয়। গত ১৫ মাস আগে তাদের ঘরে আরাফাত হোসেন নামে এক শিশুর জন্ম হয়। তারপর থেকে দিনমজুর ইবরাহিম তাঁর শশুরের এলাকা ছেড়ে গ্রামের বাড়ি বরিশাল চলে যায়।

গত রমজান মাসে দিনমজুর স্বামী ইবরাহিম স্ত্রী রোকসানাকে ৫০ হাজার টাকা নিয়ে বরিশাল যেতে বলে। কিছুদিন পর সে টাকা নিয়ে বরিশাল যায়। টাকাগুলো শেষ হয়ে গেলে রোকসানাকে আবার বাবার বাড়িতে পাঠিয়ে দেয় স্বামী ইবরাহিম। কয়েকমাস আগে রোকসানা স্বামীর সাথে যোগাযোগ করে নিজ ও সন্তানের জন্য টাকা চাইলে সে বলে ‘শিশু সন্তানসহ তুই মরে যেতে পারিস না? আমি কোথা থেকে টাকা দিব? আমি টাকা দিতে পারবো না’।

এ অবস্থায় রোকসানা মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলে। স্বামীর কথায় রাগ ও ক্ষোভে রোকসানা শিশু সন্তানকে দুইবার পানিতে ফেলে দিলে গ্রামবাসী দেখতে পেয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। রোকসানা মানসিকভাবে অ’সুস্থ্য হয়ে পড়লে তার দিনমজুর বাবা তাকে চিকিৎসা করায়। কিন্তু রোকসানা পরিপূর্ণভাবে সুস্থ্য হয়ে উঠেনি।

প্রতিবেশী ফেরদৌসি বেগম জানান, রোকসানার স্বামী দীর্ঘদিন স্ত্রী ও সন্তানের খোঁজখবর না নেয়ায় সে মানসিকভাবে ভে’ঙে পড়ে। গ্রামের বিভিন্নভাবে বাড়িতে কাজ করে নিজের ও সন্তানের আহার জোগায়। দিন যতই যাচ্ছিল, ততই রোকসানা আরও মান’সিকভাবে ভে’ঙে পড়তে থাকে। এরমধ্যে স্বামীর পক্ষ থেকে কোন রকম সহযোগিতা না পেয়ে বরং উল্টো সন্তানকে হ’ত্যা করে ফেলার জন্য সে প্র’রোচণা দিতে থাকে।

মঙ্গলবার সকাল থেকে রোকসানার শিশু সন্তান আরাফ হোসেন খাবারের জন্য কা’ন্নাকাটি করতে থাকে সে দিকবেদিক ছু’টাছুটি করে খাবার জোগাড় করতে না পেরে পার্শ্ববর্তী অশদিয়া গ্রামের একটি ডোবাতে আরাফাতকে ছু’ড়ে ফেলে দেয়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ডোবাতে শিশুর লা’শ ভেসে উঠতে দেখে পুলিশকে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে লা’শের সুরতহাল শেষে থানায় নিয়ে আসে। এ সময় শিশুটির মা রোকসানা আক্তারকেও পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শুভ রঞ্জন চাকমা বলেন, শিশুটির মা রোকসানা আক্তার মানসিকভাবে অসুস্থ্য। আমরা ডোবা থেকে শিশুটির লা’শ উদ্ধার করে নিয়ে আসি। রোকসানা আক্তার নিজের এবং শিশু সন্তানের ক্ষুধার জ্বালা সহ্য করতে না পেরে ডোবায় ছুঁড়ে ফেলে তাকে হ’ত্যা করেছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি হ’ত্যা মামলা প্রক্রিয়াধীন’।

আরও পড়ুন