বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০২:৩০ অপরাহ্ন

বাংলাদেশে কোনো ধরনের অস্থিরতা দেখতে চায় না প্রতিবেশী ভারত। নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেছেন, এদেশের নির্বাচন নিয়ে নাক গলাবে না নয়াদিল্লী। বাংলাদেশ অস্থিতিশীল হলে ভারতে তার প্রভাব পড়ে উল্লেখ করে তিনি বলেন, নিজেদের স্বার্থেই স্থিতিশীল বাংলাদেশ দেখতে চায় তারা।

দেড় বছরের মতো বাকি নির্বাচনের। এরই মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে সংলাপ করছে ইসি। যদিও তাতে এখনও সাড়া দেয়নি বিএনপি। নির্বাচন নিয়ে সরব হয়েছেন বিদেশিরাও। বিএনপির সঙ্গে বৈঠক করেছেন জাতিসংঘের আবাসিক প্রতিনিধি ছাড়াও সাতাশ দেশের জোট ইউরোপীয় ইউনিয়নের রাষ্ট্রদূত। তাদের অবস্থান স্পষ্ট; অংশগ্রহণমূলক ও সুষ্ঠু নির্বাচন দেখতে চান পশ্চিমারা। অনেকের ধারণা, নির্বাচন ইস্যুতে ভারত বড় ফ্যাক্টর। যদিও প্রকাশ্যে এ নিয়ে কথা বলে না দেশটি।

ঢাকায় ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, বাংলাদেশের নির্বাচন নিয়ে ভারত নাক গলায়, এমন কথা আমিও শুনি। তবে আমি জানি না কেন মানুষ এমনটি বলে। গত ছয় মাসে বিদেশি অনেক কূটনীতিক এদেশের রাজনীতি নিয়ে কথা বলেছে। আমি কখনোই বলিনি। ভোট কীভাবে হবে, তা এদেশের মানুষ ঠিক করবে। অন্যদের ভূমিকা রাখার সুযোগ নেই।

তবে নিকটতম প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি সব সময়ই ভারতের গভীর পর্যব্ক্ষেণে। বিশাল স্থল সীমান্ত থাকায় এখানকার রাজনৈতিক ঘটনাপ্রবাহ বিশেষ করে কোন দল ক্ষমতায়, তাদের নীতি কৌশল, ভারত ইস্যুতে মনোভাব- এসব নিয়ে চিন্তা আছে নয়াদিল্লীর। বিক্রম দোরাইস্বামী সে প্রসঙ্গে বলেন, বাংলাদেশ আমাদের প্রতিবেশী আর বন্ধু। এখানে যাই হোক, সেটি সরাসরি ভারতের জাতীয় স্বার্থের সাথে জড়িত। একই কথা বাংলাদেশের ক্ষেত্রেও সত্য। উত্তর-পূর্ব ভারতে অস্থিরতা দমনে বাংলাদেশের ভূমিকার জন্য আমরা কৃতজ্ঞ। উন্নত, শক্তিশালী ও গতিশীল বাংলাদেশ আমাদের জন্যও জরুরি।

প্রতিবেশী হিসেবে বাংলাদেশকে ভারত সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেয় দাবি করে হাইকমিশনার জানান, আলোচনার মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক সব সমস্যারই সমাধান সম্ভব।

আরও পড়ুন