শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

হঠাৎ করে দেশব্যাপী বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংকট চরম আকার ধারণ করেছ। আর তাই দেশে চলমান এই বিদ্যুতের ঘাটতি কমাতে অপচয় রোধ ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের লক্ষ্যে গত ১৯ জুলাই থেকে রাজধানীসহ সারাদেশে শিডিউল করে এলাকাভিত্তিক লোডশেডিং চলছে। তবে লোডশেডিংয়ের কারণে চু’রি-ছি’নতাই বা অন্যান্য অপরাধ প্রবণতা বাড়ার এখনো কোনো তথ্য পাওয়া না গেলেও এ বিষয়ে এলাকাভিত্তিক টহল জোরদারের জন্য নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

আজ মঙ্গলবার (২৬ জুলাই) রাজারবাগে বাংলাদেশ পুলিশ অডিটোরিয়ামে জুন-২০২২ ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভায় ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম এ নির্দেশনা দেন। বর্তমান পরিস্থিতিতে বিদ্যুৎ সাশ্রয় করার জন্য অপরাধ পর্যালোচনা সভায় উপস্থিত সব থানার অফিসার ইনচার্জদের এ সংক্রান্ত নির্দেশনা দিয়ে ডিএমপি কমিশনার বলেন, বর্তমান বৈশ্বিক পরিস্থিতির জন্য সরকার বা আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ দায়ী নয়। তবে বিপদে পড়েছে দেশ। তাই পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে দেশের স্বার্থে সবাইকে একযোগে ভূমিকা রাখতে হবে। এসময় দেশের প্রতি, দেশের মানুষের প্রতি ভালোবাসা থেকেই কৃচ্ছসাধন করতে হবে। এ কারণে এসি ব্যবহারে সবাইকে মিতব্যয়ী হওয়ার আহ্বানও জানান তিনি।

এসময় বিদ্যুৎ সাশ্রয়ের ক্ষেত্রে সকলকে মিতব্যায়ী হওয়ার আহ্বান জানান ডিএমপি কমিশনার। তিনি বলেন, থানা ও পুলিশ লাইন্স ব্যারাকসমূহে ফ্যান ও লাইট ব্যবহারের ক্ষেত্রে সবাইকে সচেতন হতে হবে। সরকারি গাড়ি ব্যবহারের ক্ষেত্রে সাশ্রয়ী হতে হবে। পুলিশ বাহিনী দিন-রাত পরিশ্রম করলেও দু-একটি ঘটনা বাহিনীকে বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন করে। ফলে পুলিশ সদস্যদের সাধারণ মানুষের সঙ্গে শোভন আচরণ করার নির্দেশ দেন তিনি।

অনুষ্ঠানে ডিএমপির অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অ্যাডমিন) মীর রেজাউল আলম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অপারেশনস্) এ কে এম হাফিজ আক্তার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (ট্রাফিক) মো. মুনিবুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটিটিসি) মো. আসাদুজ্জামান, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (লজিস্টিকস, ফিন্যান্স অ্যান্ড প্রকিউরমেন্ট) সৈয়দ নুরুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (গোয়েন্দা) মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ, যুগ্ম পুলিশ কমিশনার ও উপ-পুলিশ কমিশনারসহ অন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন