শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৪২ পূর্বাহ্ন

কুমিল্লার বুড়িচং উপজেলা বাকশীমূল ইউনিয়নে দীর্ঘদিন ধরে প’রকী’য়া প্রে’মে আ’সক্ত হয়ে যৌ’তুকের জন্য স্ত্রী’কে নি’র্যাতন চালাচ্ছে স্বামী জামসেদ আলম। এ বিষয়ে বুড়িচং থানায় স্ত্রী ফারজানা আক্তার স্বামী জামসেদ আলমের বিরু’দ্ধে একটি অভিযোগ করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বুড়িচং উপজেলার বাকশীমূল ইউনিয়নের পাহাড়পুর গ্রামের মরহুম বাচ্চু মিয়ার মেয়ে ফারজানা আক্তারের সাথে ৭ বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের বাকশীমূল গ্রামের ফজল আলীর ছেলে জামসেদ আলমের সাথে পারিবারিক ভাবে ইসলামী শরীয়াহ মোতাবেক বিবাহ হয়।

বিবাহের সময় মেয়ের সুখ-শান্তির কথা চিন্তা করে উপহার স্বরুপ নগদ টাকা,আসবাবপত্র প্রদান করে মা ও আত্মীয় স্বজনরা। তাদের দাম্পত্য জীবনে একটি কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করে। বিবাহের পরে ফারজানা জানতে পারে তার স্বামী জামসেদ আলম প্রতিবেশী এক প্রবাসী স্ত্রীর সাথে পর’কীয়া লিপ্ত।

এছাড়া মা’দক ব্যবসার সাথেও জড়িত রয়েছে। পর’কীয়ার ও মা’দক ব্যবসায় কারণে কারাগারেও যেতে হয়েছে স্বামীর।তবুও সে পরিবর্তন হয়নি। কন্যা সন্তার জন্ম গ্রহণ করার পর থেকেই জামসেদ আলম যৌতু’কের দাবীতে অন্যায় অ’ত্যাচার জোর জু’লুমসহ মার’ধর ও ভ’য়ভীতি হু’মকি ধম’কি প্রদর্শন করিয়া আসিতাছে। একটি সিএনজি কিনার জন্য স্ত্রীকে চাপসৃষ্টি করলে বাপের বাড়ি থেকে ১ লক্ষ টাকা এনে দেয়।

তবুও নি’র্যাতন থেমে যায়নি স্বামীর, গত ১০ জুলাই তারিখে স্বামী,শশুড়-শাশুড়ি মিলে বসতঘরে তালা দিয়ে ফারজানাকে এলোপাথারী লা’ঠি দিয়ে পি’টাইয়া শরী’রের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফোলা করে ঘরে থেকে বের করে দেয়। দুইদিন আগে স্বামীর বাড়িতে গিয়ে দেখে স্বামীর ঘর তালা এবং সবাই প’লাতক। তখন জানতে পারে প্রতিবেশী প্রবাসীর স্ত্রীর সাথে প’রকীয়া করার জন্য ঘরে প্রবেশ করলে স্থানীয়রা দেখে দু’জনকে আটক বুড়িচং থানার পুলিশের হাতে সোপর্দ করে দেয়। সে ভ’য়ে সবাই পলা’তক রয়েছে।

দীর্ঘদিন ধরে কন্যা শিশুকে কোলে নিয়ে সামাজের সাহেব-সর্দারের কাছে ঘুরছেন বিচারের জন্য। স্ত্রী ফারজানা প্রতিনিধিকে জানান, আমার স্বামী জামসেদ আলম প্রতিবেশী প্রবাসীর স্ত্রী শিরিন আক্তারের সাথে পর’কীয়া লি’প্ত এবং কয়েকবার স্থানীয়দের কাছে ধরা খাইছে।এর আগে আমার স্বামীর পরকী’য়ার কারণে আরো একটি সংসার ভে’ঙেছে। আমি সাহেব-সর্দার, চেয়ারম্যান ও প্রশাসনের কাছে সঠিক বিচার চাই।

এ বিষয়ে স্থানীয় মেম্বার রাকিবুল ইসলাম বলেন, জামসেদ আলমের বিভিন্ন অপ’রাধের জে’রে কয়েকবার মে’ল-দরবার করেছি, তবুও সে ভালো হয় নাই।

বাকশীমূল ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল করিম বলেন, এই ছেলের বিভিন্ন অপরাধের কারণে মেল-দরবার করা হয়েছে। কিছুদিন আগেও আরেকটি ঝামেলা করে তার এলাকাতে।থানার পুলিশ অবগত আছে।

আরও পড়ুন