বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৩ অপরাহ্ন

গাজীপুর সিটিতে সড়ক প্রশস্ত করার পর অসংখ্য বৈদ্যুতিক খুঁটি সড়কেই রয়ে গেছে। এতে ভোগান্তি আর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে নগরবাসী। খুঁটিগুলো সড়কের মাঝে থাকায় প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটছে। এ অবস্থার জন্য পল্লী বিদ্যুৎকে দুষছে সিটি করপোরেশন। বাধ্য হয়ে নিজেরাই খুঁটি সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে নগর কর্তৃপক্ষ।

২০১৩ সালের প্রথম গাজীপুরের সদর, টঙ্গী, পূবাইল, কোনাবাড়ি ও কাশিমপুরসহ মোট ৫৭টি ওয়ার্ড নিয়ে গঠন করা হয় গাজীপুর সিটি করপোরেশন। এরপরই শুরু হয় সিটি করপোরেশন এলাকার বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড। সড়ক প্রশস্তের সবচেয়ে বেশি কাজ হচ্ছে চলতি বছর। তবে প্রশস্ত করার পর অসংখ্য বৈদ্যুতিক খুঁটি সড়কেই রয়ে গেছে। ফলে ভোগান্তি আর ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে নগরবাসী।

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চাপ কিছুটা কমাতে এসব রাস্তা দিয়ে ট্রাক, মিনিবাস, প্রাইভেট কারসহ ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা চলাচল করে। বৈদ্যুতিক এ খুঁটিগুলো এখন সড়কের মাঝে থাকায় প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা। পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ বলছে, সিটি এলাকায় হঠাৎ করে বিপুল সংখ্যক বিদ্যুতের খুঁটি স্থানান্তরের বাজেট তাদের নেই।

পল্লী বিদ্যুতের পূবাইল জোনের প্রকৌশলী মো. রাজু হাসান জানান, সিটি করপোরেশন জানায়নি যে তারা রাস্তা করছে। আমাদের প্ল্যান দিলে আমরা সেভাবে একট বাজেট করে দিতাম। রাস্তা করার সময় আমাদের বলা হয়েছে খুঁটি সরাতে। তখন তাৎক্ষণিকভাবে একটি ডিজাইন দিয়ে দিয়েছি আমরা।

সিটি কর্তৃপক্ষের অভিযোগ, কোনো সমন্বয় ছাড়াই কাজ করেছে পল্লী বিদ্যুৎ। রাস্তা নির্মাণের আগে চিঠি দেয়া হলেও পল্লী বিদ্যুৎ কোনো পদক্ষেপ নেয়নি। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত মেয়র আসাদুর রহমান কিরণ বলেন, এখন নিজেদের উদ্যোগেই আমরা খুঁটিগুলো সরানোর ব্যবস্থা নিয়েছি। একটি তালিকা তৈরি করে ইতোমধ্যেই একটি আনুমানিক ব্যয় জেনে এরপর প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবো।

আয়তেনে সবচেয়ে বড় সিটি করপোরেশন গাজীপুরে চলছে সড়ক ও ওভারপাস নির্মাণ কাজ। অপর দিকে উন্নয়ন কাজে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে সড়কের ওপর ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যুতের খুঁটিগুলো।

আরও পড়ুন