মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ১২:০৮ অপরাহ্ন

আদালতে মা’নহানির মামলায় হাজিরা দিতে যাওয়া যমুনা টেলিভিশনের গাইবান্ধা করেসপনডেন্ট জিল্লুর রহমান পলাশসহ ৫ সাংবাদিককে আদালত চত্বরে গা’লিগা’লাজ করেছেন ওই মামলার বাদী সুন্দরগঞ্জের সাবেক পিআইও নুরন্নবী সরকার। এসময় তিনি সাংবাদিকদের দেখে নেয়ার হু’মকিও দেন।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) দুপুরে রংপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের ক্যান্টিনের সামনে আদালতের বারান্দায় এ ঘটনা ঘটে।

পলাশসহ পাঁচ সাংবাদিকের আইনজীবী ফরহাদ হোসেন জানান, আদালত ভবনের ৬ষ্ঠ তলায় রংপুর অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজিরা দিতে আসেন সাংবাদিকরা। বিচারক না থাকায় মামলার পরের তারিখ হয় ৩১ অক্টোবর।

সাংবাদিকরা সেখানে কাজ শেষ করে নিচে নামলে মামলার বাদী পিআইও নুরুন্নবী সরকার পলাশসহ অন্যান্যদের অত্যন্ত অ’শ্লীল ও উল্লেখের অ’যোগ্য ভা’ষায় গা’লিগা’লাজ শুরু করেন। এসময় তিনি পলাশের প্রতি মা’রমু’খো হয়ে পড়েন। উচ্চস্বরে হাত ও আঙ্গুল উঁচিয়ে তাকে বলেন, তোকে এবার মজা দেখাবো। আমার ১২০ বান্ডিল টিমকে ৫০০ বান্ডিল বানিয়ে রিপোর্ট করেছিস। এখন আদালতে এসে হয়’রানি হ।

পরে সেখানে উপস্থিত আইনজীবী ও কোর্ট পুলিশের হ’স্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ হয়। এ ঘটনায় পলাশসহ সাংবাদিকরা মেট্রোপলিটন কোতয়ালী থানায় জিডি করেছেন।

পলাশের আইনজীবী আরও জানান, একজন সরকারি দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা আদালতকে সম্মান রেখে হাজিরা দিতে আসা সাংবাদিকদের যেভাবে গা’লিগা’লাজ করেছেন এবং হুম’কি দিয়েছে এটি শিষ্টাচারবিরুদ্ধ এবং ফৌজদারী অপরাধ। যে সরকারি কর্মকর্তা কোর্টের বারান্দায় কাউকে এভাবে গা’লিগালা’জ ও হু’মকি দিতে পারেন, তার পক্ষে বড় ধরনের ক্ষ’তি করা সম্ভব। যেহেতু জিডি করা হয়েছে, ঘটনাটি তদন্ত করে ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্টদের প্রতি অনুরোধ করেন তিনি।

যমুনা টেলিভিশনের গাইবান্ধা প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান পলাশ বলেন, আমি তার বিরুদ্ধে দু’র্নীতির সচিত্র একাধিক প্রতিবেদন করেছি। এতে ক্ষু’ব্ধ হয়ে তিনি আমার বিরু’দ্ধে মানহানির মা’মলা করেছেন। আদালতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে আমিসহ অন্যান্যরা নিয়মিত হাজিরা দিচ্ছি। তবে বাদী পিআইও নুরুন্নবী যেভাবে আদালতের বারান্দায় আমাদের ওপর হামলে পড়েছেন, তাতে আমরা উদ্বিগ্ন এবং নিরাপত্তাহীনতা বোধ করছি।

তবে ঘটনা অস্বীকার করেছেন সুন্দরগঞ্জের সাবেক পিআইও নুরুন্নবী সরকার। তার দাবি, ওই সাংবাদিকরাই তার ওপর চড়াও হয়েছেন। এমনকি তিনি সেখানে কারও সাথে খারাপ ব্যবহার করেননি বলেও দাবি করেন।

প্রসঙ্গত গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের সাবেক পিআইওর অনিয়ম ও দু’র্নীতির বিরুদ্ধে যমুনা টেলিভিশনসহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে একাধিক প্রতিবেদন প্রচার ও প্রকাশের কারণে ২০১৯ সালে যমুনার প্রতিনিধি জিল্লুর রহমান পলাশসহ কালের কণ্ঠের সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধি মামুনুর রশিদ, ভোরের দর্পণের সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধি শামসুল হক, দৈনিক সুন্দরগঞ্জের প্রতিনিধি আবু জাহিদ কারী এবং মানবাধিকার কর্মী মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে রংপুর জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে দুটি পৃথক মামলা করেন তিনি। আজ মামলাটির চার্জ গঠন শুনানির দিন ছিল।

আরও পড়ুন