শনিবার, ৩১ অক্টোবর ২০২০, ০৯:৩১ অপরাহ্ন

করোনা পরিস্থিতির কারণে হতদরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়াতে সকলের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাপা চেয়ারম্যান জি এম কাদের। সাধারণ মানুষ চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়ায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ১৪ দলের অন্যতম শরিক নেতা ও ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন।

মঙ্গলবার গণমাধ্যমে পাঠানো পৃথক পৃথক বিবৃতিতে নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, করোনা ভাইরাস মোকাবেলার সামাজিক বিচ্ছিন্নতায় সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে দেশের খেটে খাওয়া মানুষ। তিনি বলেন, হতদরিদ্রদের সহায়তায় সরকার বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহণ করেছে কিন্তু অনেক ক্ষেত্রেই তা পর্যাপ্ত নয় আবার অনেক শ্রেনীর মানুষ এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই করোনা মুক্ত বাংলাদেশ গড়তে বিপাকে পড়া হতদরিদ্র মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানো জরুরি হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, দেশের এমন পরিস্থিতিতে বিত্তবানদের সহায়তার হাত বাড়াতে হবে দিন এনে দিন খায় মানুষদের প্রতি। মঙ্গলবার এক বিবৃতিতে জাপা চেয়ারম্যান এ আহবান জানান।

বিবৃতিতে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান আরো বলেন, বৈশ্বিক এমন বিপর্যয়ে দেশের প্রতিটি মানুষের মাঝে মানবিক মূল্যবোধ জাগ্রত করতে হবে। মানুষের সংহতি, ভ্রাতৃত্ব ও মমত্ববোধ অর্থনৈতিক দুরবস্থা থেকে মুক্তি দিতে পারে দারিদ্র পীড়িতদের।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে অস্বচ্ছল মানুষদের খাদ্যদ্রব্য বিতরণে সামর্থবানদের প্রতি আহবান জানান তিনি। পাশাপাশি হতদরিদ্র মানুষদের সাধ্যমত সহায়তা করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের প্রতিও আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

জাপায় ২৫ সদস্যের করোনা দুর্যোগ মোকাবেলা সমন্বয় কমিটি গঠন

করোনা ভাইরাসের কারণে বিশ্বে আজ মহাবিপর্যয় নেমে এসেছে। আমাদের দেশেও এর প্রভাব পড়েছে। করোনা ভাইরাস মোকাবেলায় সরকারের পাশাপাশি জাতীয় পার্টিও কাজ করে যাবে। আশঙ্কা করা হচ্ছে যে সমস্যাটি দীর্ঘস্থায়ী হতে পারে। সে কারনে জাতীয় পার্টি করোনা ভাইরাস রোগের বিস্তার পর্যবেক্ষণ, সরকারী সকল মহলের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা ও পরবর্তী করনীয় নির্ধারন ও বাস্তবায়নে নিয়োজিত থাকবে।

সে উদ্দেশ্যে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপি’কে প্রধান সমন্বয়কারী ও পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ এমপি’কে সদস্য সচিব করে ২৫ (পঁচিশ) সদস্যের করোনা দুর্যোগ মোকাবেলায় কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটি গঠন করা হয়। একই সঙ্গে জেলা ও উপজেলা সমূহে সরেজমিনে কাজ করার জন্য আটটি বিভাগীয় কমিটি গঠন করা হয়।

আরও পড়ুন