রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৪:৫১ অপরাহ্ন

প্রশাসনের ওপর ক্ষো’ভ ঝেড়েছেন বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়র ও মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। ফেসবুক লাইভে তিনি এই ক্ষোভ ঝাড়েন। বৃহস্পতিবার (১৯ আগস্ট) সন্ধ্যায় মহানগর আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক জিয়াউর রহমানের ফেসবুক থেকে লাইভ করা হয়। ১০ মিনিট পরে অবশ্য মুছে ফেলা হয় ভিডিওটি।

প্রকাশিত লাইভে দেখা যায়, সন্ধ্যায় গোয়েন্দা পু’লিশের একটি দল নগরীর কালীবাড়ি মোড়ে মেয়রের বাসার পেছনের ফটকে অবস্থান নিয়েছে। বিষয়টি আন্দাজ করতে পেরে মেয়র বেরিয়ে এসে গোয়েন্দাদের কাছে এখানে অবস্থানের কারণ জানতে চায়। কিন্তু তারা চলে যাওয়া শুরু করেন। নাছোড়বান্দা মেয়র তাদের পিছু নিয়ে কালী বাড়ি রোডের সমাজসেবা কার্যালয়ের সামনে পর্যন্ত যান।

তখন তিনি গোয়েন্দা পু’লিশের সদস্যদের বলেন, আপনারা আমার প্রটেকশনের জন্য এসেছেন বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশ হয়েছে। আপনারা এভাবে সাদা পোশাকে আমার বাসায় এসে কি করতে চান? তার মানে কি সরকারকে ডোবাতে চান? আমার বাসা থেকে যারা বের হচ্ছে তাদের হ্যারেজমেন্ট (হয়রানি) করছেন কেন? এভাবে হ্যারেজমেন্ট না করে আমাকে বলুক আমি অ্যারেস্ট হয়ে যাবো। আমি তো আগেই বলেছি, আগেই ইঙ্গিত দিয়েছি এ রকমের কোনও ঘটনা ঘটাতে যাচ্ছে তারা (প্রশাসন)।

ফেসবুক লাইভে বরিশালের স্থানীয় ভাষায় মেয়র বলেন, আমি কিন্তু চুপ কইরর‌্যা আছি। মাটি কামরাইয়া রইছি। মাংস কামরাইয়া রইছি। গুলি হইছে, আমাদের নেতাকর্মীরা আহত হইছে। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা শহরে যাইতে দেতে আছে না পু’লিশ। কোন পরিস্থিতিতে আছি আমরা। এইটা কেমন কথা। আমি একজন মেয়র, এখানে সিভিল প্রশাসন, পু’লিশ প্রশাসন তারা মিল্ল্যা কি করতেছে? বুঝলাম না, হোয়াট ইস দিস। এইটা কোন মেয়রের ক্ষমতা। ক্ষমতারও বিষয় নয় এখানে। তারা কি চাচ্ছে- তারা গু’লি করলে আমরা পাল্টা গুলি করবো? এইটা চাইছিলো হয়তো বা।

তিনি বলেন , এই যে যা করতেছে, আমরা একটা মিছিল করি না, প্রতিবাদ সভা করি না। কারণ এই সরকার তো আমাদের সরকার। নৌকা মার্কার সরকার। জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার। আমি এখানে নাড়া দিলে ক্ষতি ওনাদের (প্রশাসন) হবে না তো, ক্ষতি হবে আমার দলের। আমার দলের ক্ষতি করার আগে এখান থেকে সরাসরি রিজাইন দিয়া চলে যাওয়া ভালো আমার জন্য।

মেয়রের এসব অভিযোগের প্রেক্ষিতে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-কমিশনার (দক্ষিণ) আলী আশরাফ ভূঁইয়া বলেন, নিরীহ কাউকে হয়রানি করা হচ্ছে না। যারা ইউএনও’র বাসায় এবং পু’লিশের ওপর হামলা চালিয়েছে তাদের গ্রে’ফতার করা হচ্ছে। ওই ঘটনায় গু’লিবিদ্ধ কিংবা আহত কাউকে উন্নত চিকিৎসা নিতে পু’লিশ বাঁধা দেয়নি এবং দেবে না বলেও জানান উপ-কমিশনার আলী আশরাফ ভূঁইয়া।

প্রসঙ্গত, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের ভাগ্নে আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহর ছেলে সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ বর্তমানে বরিশাল সিটি করপোরেশনের মেয়রের দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাতো ভাইয়ের ছেলে। মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহর দাদা আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সপরিবারে নি’হত হন।

আরও পড়ুন