রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৮:১৭ অপরাহ্ন

ম’দ্যপ স্বামীর উপদ্রবে বাড়ি ছাড়লেন স্ত্রী। আর সেই দুঃখে মদ খেয়ে স্বামী চড়লেন হাইটেনশন টাওয়ারে। এই ঘটনা নিয়ে তুমুল উত্তেজনা ছড়াল। রবিবার আসানসোলের ঘটনা।

ঠিক যেন শোলে সিনেমার সেই বিখ্যাত দৃশ্য। যেখানে বীরু মানে ধর্মেন্দ্র তাঁর প্রেয়সীর দুঃখে উঠে পড়েছেন ট্যাঙ্কে। আর সেখান থেকে ঝাঁপ দেওয়ার হু’মকি দিচ্ছেন। আর প্রবল আত’ঙ্কে গ্রামবাসীরা। কে জানি কখন কী হয়! যদি পড়ে যায়?

রবিবার আসানসোল তেমনই দৃশ্য দেখল যেন। এক যুবক ম’দ খেয়ে বিদ্যুতের টাওয়ারে চড়ে গিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। পরে অবশ্য তিনি নেমে এসেছেন। স্ত্রী চলে গিয়েছেন। তাই তাঁর অভিমান হয়েছে। আর সেই অভিমানের জন্য তিনি চড়ে বসেছেন।

স্ত্রীর চলে যাওয়ার কারণও কিন্তু ওই ম’দ। সেই জ্বালায় তিনি আপাতত চলে গিয়েছেন। স্ত্রীর দুঃখ ভুলতে স্বামী উঠে পড়লেন বিদ্যুতের খুঁটিতে।

নাম সুখরাম কিন্তু সুরাপ্রেমী হওয়ায় কপালে সুখ নাই। পলাতক স্ত্রী। দুঃখে উঠে পড়লেন হাই ভোল্টেজ বিদ্যুতের খুঁটিতে। যদিও খারাপ কিছু হয়নি এটাই বাঁচোয়া।

স্বামী দিনরাত মদ্য খান। এমনই অভিযোগ। সেই জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে স্ত্রী পালালেন বাপের বাড়ি। এই দুঃখে মদ্যপ স্বামী চড়ে বসলেন হাইটেনশন টাওয়ারে। বড় বিপদ হতে পারত। বি’দ্যুৎস্পৃ’ষ্ট হয়ে মৃত্যু হতে পারতো। কিন্তু অল্পের জন্য বেঁচে যায়।

রবিবার স্থানীয় মানুষজন থেকে পুলিশ প্রশাসন, সবার ঘুম ওড়ালেন এক মদ্যপ। শেষ পর্যন্ত মদের নেশা কাটার পর নিজেই টুক টুক করে টাওয়ার থেকে নেমে বাড়ি ফিরে গেলেন সুখরাম।

এই ঘটনা ঘটল সালানপুরে। সালানপুর থানার রামডি গ্রামের বাসিন্দা সুখরাম নামে এক যুবক মদ খেয়ে গ্রামের ২১ হাজার ভোল্টের হাইটেনশন টাওয়ারের উপরে উঠে যাযন।

অনেক বলেকয়ে তাঁকে নিরস্ত্র করা যায়নি। গ্রামবাসীরা সালানপুর থানায় খবর দেয়। অভিযোগ ঘন্টাখানেক কেটে গেলেও সালানপুর থানার পুলিশ আসেনি ঘটনাস্থলে।

বহু প্রচেষ্টার পরও গ্রামবাসীরা সুখরামকে নামাতে পারেননি। তাঁদের কারও কথা শোনেননি তিনি। মদের নেশা কাটতেই নিজেই নেমে আসে। স্বস্তি পান স্থানীয়রা।

আরও পড়ুন