রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৯:৫১ অপরাহ্ন

রাজশাহীর বাগমারায় এক নারী ব্যাংক কর্মকর্তার (৩২) গোস’লের দৃশ্য গো’পনে ধারণ করে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে করা মা’মলায় এক কলেজছাত্রকে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশ।

সোমবার (২৩ আগস্ট) সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ভুক্তভোগী ওই নারী ঢাকায় একটি বেসরকারি ব্যাংকে কাজ করেন। এর আগে রোববার (২২ আগস্ট) রাতে গ্রে’প্তার করা হয়।

গ্রে’প্তারকৃত মুরাদ হোসেন (২১) একই উপজেলার বাসিন্দা। তিনি নাটোর নবাব সিরাজ উদ দৌলা কলেজের সম্মান শ্রেণির শিক্ষার্থী।

মা’মলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ঈদুল আজহার ছুটিতে ভুক্তভোগী নারী ব্যাংক কর্মকর্তা ঢাকা থেকে তার শ্বশুরবাড়ি বাগমারার একটি গ্রামে আসেন। এ সময় আবদুল আলিম নামের এক তরুণ গো’পনে ওই নারীর গো’সলের ভিডিও মুঠোফোনে ধারণ করেন। পরে সেটি তিনি তার বন্ধু মুরাদ হোসেনকে দেন।

এদিকে মুরাদ ভু’ক্তভোগী নারী ব্যাংক কর্মকর্তার কাছে ভিডিওটি পাঠিয়ে মোটা অঙ্কের টাকা দাবি করেন। টাকা না দিলে তা ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার হু’মকি দেন। পরে টাকা না পেয়ে মুরাদ হোসেন ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ-মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে দেন। এ ঘটনায় ওই নারীর স্বামী বাদী হয়ে রোববার (২২ আগস্ট) রাতে থা’নায় প’র্নোগ্রাফি আইনে দুই তরুণের নামে মাম’লা করেন। পু’লিশ অভিযোগের সত্যতা পাওয়ায় রাতেই মুরাদ হোসেনকে গ্রে’প্তার করে।

মাম’লার বাদী বলেন, তিনি ও তার স্ত্রী এ ঘটনার পর সামাজিকভাবে হেয় হয়েছেন। তারা মানসিকভাবে ভে’ঙে পড়েছেন।

উপজেলার ভাগনদি পু’লিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) সাজ্জাদ হোসেন বলেন, রোববার (২২ আগস্ট) রাতেই অভিযান চালিয়ে এক আসামিকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। অন্যজনকে গ্রে’প্তারে অভিযান চলছে।

আরও পড়ুন