শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে একজন আইনজীবীর লাইসেন্স করা পিস্তল চুরি করে তার মাদ’কাসক্ত ছেলে শামীম নিজ বাড়ির দোতলায় একটি কক্ষের ভেতরে অবরুদ্ধ রয়েছেন।
খবর পেয়ে পু’লিশ ও র‌্যাব অস্ত্রসহ উদ্ধার করতে গেলে মাদ’কাসক্তের গু’লিতে আহত হয়েছেন আসাদুজ্জামান খান পরাগ নামে মাদক নিরাময় কেন্দ্র বেস্ট এডিশন ইন্সটিটিউটের একজন কর্মকর্তা।

এ দিকে ঘটনার পর অবরুদ্ধ কক্ষ থেকে বের করতে থা’না পু’লিশ, জেলা ডিবি পু’লিশ ও ফায়ার সার্ভিস চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। উপজেলার দাউদপুর ইউপির কালনী হিরনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

মাদকাসক্ত শামীমের বড় সেলিম জানান, তারা বাবা রফিকুল ইসলাম সুপ্রীম কোর্টের একজন আইনজীবী ও ব্যবসায়ী। তার ছোট ভাই শামীম একজন মাদক সেবী। মাদক সেবনেরর টাকার জন্য প্রায় সময়ই বাড়িতে ভাঙচুর চালাতো ও এলাকার বিভিন্ন লোকজনকে মারধর করতো। এদিকে, ২১ আগস্ট তার বাবার লাইসেন্সকৃত ৬ রাউন্ড গুলি ভর্তি পিস্তলটি ঘর থেকে খুঁজে পাচ্ছিলেন না। এ ঘটনায় ২২ আগস্ট রফিকুল ইসলাম রূপগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। এরপর থেকে মাদকাসক্ত শামীম বাড়ির দোতলায় একটি কক্ষে নিজেকে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

শনিবার রাত ১ টার দিকে সাভারের আশুলিয়ায় অবস্থিত মাদকাসক্ত নিরাময় কেন্দ্র বেস্ট এডিশন ইন্সটিটিউটের একটি টিম রূপগঞ্জ থানা পুলিশের সহায়তা নিয়ে শামীমকে নিয়ে যেতে আসেন। এ সময় পুলিশের সহায়তায় তারা ঘরের দরজা ভেঙে ফেলতে গেলে অবরুদ্ধ থাকা মাদকাসক্ত শামীম তাদের লক্ষ্য করে ২ রাউন্ড গুলি ছুড়ে। একটি গুলি বেস্ট এডিশন ইন্সটিটিউটের কর্মকর্তা আসাদুজ্জামান খান পরাগের হাতে লাগে। তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ ঘটনার খবর পেয়ে রোববার সকালে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আতিকুল ইসলাম ও রূপগঞ্জ থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস অবরুদ্ধ কক্ষ থেকে শামীমকে পিস্তলসহ বের করতে অভিযান চালায়।

এসময় পুলিশ কক্ষের ভিতরে শর্টগানের দুই রাউন্ড ফাকা গুলি ছুড়ে। এসময় শামীম পুলি’শকে লক্ষ্য করে কয়েকবার গুলি করার চেষ্টা চালায়। দিনভর চেষ্টা চালিয়ে তাকে উদ্ধার করতে না পেরে পু’লিশ বাহিনী সদস্য বাড়িটিকে ঘিরে রেখেছে। রাত পৌনে ৮ পর্যন্ত রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত অনেক চেষ্টা করেও মাদকাসক্ত শামীমকে বদ্ধ কক্ষ থেকে উদ্ধার ও পিস্তল উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

রূপগঞ্জ থা’নার ওসি এএফএম সায়েদ বলেন, শামীম নামে এক মাদকাসক্ত তার বাবার পিস্তল চুরি করে ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে নিজেকে অবরুদ্ধ করে রেখেছে। পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস দিনভর চেষ্টা করেও তাকে ওই কক্ষ থেকে বের করতে পারেনি। তাকে বের করতে পুলিশ ২ রাউন্ড ফাকা গুলিও ছুড়ে। ঘটনাটি ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

শামীম কয়েক বছর আগেও তার বাবাকে গু’লি করে। ফাঁকা গুলির শব্দে বর্তমানে আশপাশে থাকা সাধারণ মানুষ আতঙ্কে রয়েছেন। -ডেইলি বাংলাদেশ

আরও পড়ুন