বুধবার, ২৯ Jun ২০২২, ০৬:৪২ অপরাহ্ন

লক্ষ্মীপুরে চার বছরের এক শিশুসন্তানসহ প্রেমিকের হাত ধরে পা’লি’য়েছেন জান্নাতুল ফেরদাউস নামে এক নারী। এ ঘটনায় একটি মা’মলা করেছেন ওই নারীর স্বামী রাসেল মাহমুদ রোমান। এ নিয়ে প্রে’মিকের সঙ্গে দুবা’র পা’লালেন ওই নারী। প্রথমবার একা পা’লালেও এবার সঙ্গে তার চার বছর বয়সী মেয়েকে নিয়ে গেছেন।

পুলিশ সূত্র জানায়, গত ১৪ জুন শিশুসন্তানকে নিয়ে জান্নাতুল ফেরদাউস প্রেমিক সাইফুল ইসলামের সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো পা’লিয়ে যান। এ ঘটনায় স্বামী রোমান সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। তবে দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও মেয়েকে না পেয়ে রোববার (২৯ আগস্ট) দুপুরে লক্ষ্মীপুর সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (সদর) আদালতে জান্নাতুল ফেরদাউস, প্রেমিক সাইফুল ও সহযোগী কা’ওছার আহম্মেদকে আসা’মি করে একটি মা’মলা দা’য়ের করেন রোমান।

অভিযু’ক্তরা সদর উপজেলার দক্ষিণ হামছাদী ইউনিয়নের হেতিমপুর গ্রামের বাসি’ন্দা। বাদীর আইনজীবী লুৎফুর রহমান গাজী বলেন, মাম’লাটি আ’দাল’তের বিচারক রায়হান চৌধুরী আ’মলে নিয়েছেন। এটি তদ’ন্ত করার জন্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি) নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। মাম’লার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ব্যবসায়ী রোমান ও জান্নাতুল ফেরদাউসের সঙ্গে প্রে’মের সম্প’র্ক ছিল। পাঁচ বছর আগে তাদের বিয়ে হয়।

একবছর পরই তাদের সংসারে নতুন অতিথি হিসেবে রাফার জন্ম হয়। ব্যবসার কাজে রোমান রাজধানীতেই থাকতেন। এ সুযোগে জান্নাতুল ফেরদাউস স্বামীর বন্ধু সাইফুল ইসলামের সঙ্গে প’রকী’য়া সম্প’র্ক গড়ে তোলেন। স্থানীয়দের কাছে সাইফুল ও জান্নাতুল ফেরদাউস হাতেনা’তে আ’টক হন। গত ৪ এপ্রিল শিশু মেয়েটিকে রেখে জান্নাতুল প্রেমিক সাইফুলের সঙ্গে পা’লিয়ে যান। এ সময় তাদের বিয়েও হয়। পরে সালি’শি বৈঠকের মাধ্যমে সন্তানের কথা চিন্তা করে জান্নাতুল ফেরদাউসকে ফের ঘরে তোলেন রোমান। দুই মাসের মাথায় গত ১৪ জুন ফের ওই নারী প্রেমিকের হাত ধরে পা’লিয়ে যান।

মাম’লার বা’দী রাসেল মাহমুদ রোমান বলেন, সাইফুল আমার ছোটবেলার বন্ধু। সম্পর্কেও চাচা-ভাতিজা। সাইফুলের স’ঙ্গে আমার স্ত্রী’কে পা’লিয়ে যেতে কাওছার সহযোগিতা করেছে। তারা পা’লিয়ে যাওয়ার সময় আমার মেয়েটিকে নিয়ে গেছে। দেড় মাস হয়ে গেছে আমি মেয়েটির খোঁজ পাচ্ছি না। কিভাবে আছে, কেমন আছে? আমার মেয়েটিকে তারা কি করেছে? তা-ও জানতে পারছি না। মেয়েকে অ’ক্ষ’ত অবস্থায় আমার কোলে ফিরিয়ে দিতে প্রশাসনসহ সকলের সহযোগিতা কামনা করছি।

আরও পড়ুন