বৃহস্পতিবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:৫৪ অপরাহ্ন

নববধূর সঙ্গে দেখা করতে শ্বশুরবাড়ি গিয়েছিলেন। কিন্তু সেখানে আপ্যায়নের বদলে শিকার হয়েছেন হাতুড়িপেটার। শুধু তাই নয়, চু’রিচেষ্টার মা’মলা দিয়ে তাকে পাঠানো হয় কারাগারে।

সোমবার আদালতের মাধ্যমে নববধূর স্বামী জাকারিয়াকে কারাগারে পাঠানো হয়।এর আগে রোববার দিবাগত রাত ১টার দিকে কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের হোগলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

হাতুড়িপেটার শিকার জাকারিয়া রাজবাড়ী সরকারি কলেজের রসায়ন বিভাগের অনার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী। জগন্নাথপুর ইউনিয়নের জোতপাড়া গ্রামরে মৃত শহিদুল ইসলামের ছেলে।

জাকারিয়ার চাচা রবিউল ইসলাম জানান, তার ভাতিজার সঙ্গে ওই মেয়ের দীর্ঘদিন ধরে প্রেমের সম্পর্ক চলে আসছে। প্রায় দুই বছর আগে মেয়েটির বাবা তার ভাতিজাকে এ নিয়ে মা’রধর করেন। হঠাৎ ২৪ আগস্ট তারা দুজনে গোপনে কাজী অফিসে গিয়ে বিয়ে করেন। বিয়ের পর তারা যে যার বাড়িতে অবস্থান করছিলেন।

জাকারিয়ার চাচা অভিযোগ করেন, রোববার রাতে তার ভাতিজার মোবাইলে মেয়েটির ম্যাসেজ আসলে ভাতিজা দেখা করতে ছুটে যান। এসময় মেয়েটির বাবা খলিল মাষ্টার তার চাচাত ভাইসহ শ্বশুরবাড়ির ৪-৫ জন মিলে ঘরের মধ্যে আ’টকে তার ভাতিজাকে হাতুড়িপেটা করেন। এরপর তার বিরুদ্ধে চুরির চেষ্টার অভিযোগ করে তাকে পু’লিশে সোপর্দ করেন।

এ বিষয়ে কুমারখালী থা’নার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার জানান, রাত ১টার দিকে খলিল মাষ্টারের বাড়িতে অনধিকার প্রবেশের জন্য তারা ওই যুবককে মা’রপিট করে পু’লিশের হাতে তুলে দিয়েছে। পরে তার বিরুদ্ধে ওই পরিবারের পক্ষ থেকে চু’রিচেষ্টার অভিযোগে থা’নায় মা’মলা করা হয়।

আরও পড়ুন