বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৯:০৭ পূর্বাহ্ন

খাগড়াছড়ির সরকারি কলেজের ছাত্রীদের কমনরুম থেকে মেয়ে নবজাতক উদ্ধার করা হয়। উদ্ধারের পর থেকেই প্রশ্ন আসে অভিভাবক নিয়ে। তবে সে সংশয় দূর করে শিশুটির অভিভাবকত্ব চেয়ে অনেকেই আদালতে আবেদন করেন। শেষে আদালতের নির্দেশে অভিভাবকের দায়িত্ব পেয়েছেন রাঙামাটির লংগুদু উপজেলার তবলছড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক স্মৃতি বিকাশ চাকমা ও তার স্ত্রী অন্বেষা খীসা।

খাগড়াছড়ি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুন্যালের বিচারক মুহাম্মদ আবু তাহের আজ মঙ্গলবার দেড়টার দিকে এই আদেশ দেন। আদেশ পেয়ে হাসপাতালে গিয়ে সমাজসেবা কর্মকর্তাদের থেকে নবজাতককে বুঝে নিয়েছেন তারা।স্মৃতি বিকাশ চাকমার সঙ্গে কথা হয় আদালত প্রাঙ্গণে। তিনি বলেন, ‘আরও পাঁচজন শিশুটির অভিভাবকত্ব চেয়ে আবেদন করেছিলেন।

পরে আদালত শুনানি আমার পক্ষে আদেশ দেন। শিশুটির অভিভাবক হতে পেরে আমি এবং আমার স্ত্রী খুব খুশি। এই শিশু আমাদের সন্তান হিসেবেই বড় হবে। ’ এর আগে, গতকাল সোমবার খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজের ছাত্রী কমনরুম থেকে ক্রন্দনরত অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়।

কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. রফিক উদ্দিন জানান, কলেজে এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনম্যান্ট জমা দেওয়ার তারিখ ছিল। ছাত্রীরা অ্যাসাইনম্যান্ট জমা দিয়ে চলে যাওয়ার পর কলেজ কর্মচারীরা কমনরুমে শিশুর কান্নার শব্দ শুনতে পান। পরে সমাজসেবা কর্মকর্তাদের ডেকে শিশুটিকে মাতৃমঙ্গলে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। বিষয়টি হতাশাজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

আরও পড়ুন