রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ১১:৫৯ অপরাহ্ন

মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ ৪৫ জন অভিবাসীকে ১৪ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে পু’লিশ। দেশটিতে অবৈধভাবে গার্মেন্টস কারখানা পরিচালনা ও শ্রমিক খাটানোর অভিযোগে তাদের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কারখানার মালিক ৪৫ বছর বয়সী এক বাংলাদেশি রয়েছেন। তবে তাদের মধ্যে কতজন বাংলাদেশি সে সংখ্যা জানা যায়নি।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গ্রেফতারদের মধ্যে বাংলাদেশি ছাড়াও মিয়ানমার, ইন্দোনেশিয়ার নাগরিক রয়েছেন। মালয়েশিয়ার অভিবাসন পুলিশ ও দুর্নীতি দমন কমিশন (এমএসিসি) এর যৌথ অভিযানে সেলেঙ্গরের আমপাং এলাকা থেকে মালামাল ও যন্ত্রপাতিসহ তাদের গ্রেফতার করে।

এসময় অবৈধ কারখানা স্থাপনে সহযোগিতার অভিযোগে স্থানীয় মালয়েশিয়ান এক নারীর বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেছে পু’লিশ। কারণ তিনিও এই কারখানার সহযোগী পরিচালক ছিলেন। আট’ক অভিবাসীদের বয়স ১৭ থেকে ৫৫ বছরের মধ্যে। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, অভিযুক্ত বাংলাদেশি আমপাং এলাকার একটি বাণিজ্যিক অ্যাপার্টমেন্ট ভাড়া নিয়ে কারখানা ও শো-রোম হিসেবে ব্যবহার করে আসছিলেন।

এই ৪৫ জন শ্রমিককে দিয়ে কারখানায় স্থাপিত মেশিনে কাপড় কাটা, সেলাই ও প্রিন্টিংয়ের কাজ করানো হতো। এর মধ্যে অনেক শ্রমিকের ভিসা নেই। শ্রমিকদের মাসিক ১৬শ রিংগিত বেতন দেওয়া হত। বাংলাদেশি মালিকের কারখানা পরিচালনার কোনো লাইসেন্স ছিল না। কোম্পানির নাম ব্যবহার করে একাধিক ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও গাড়ি কিনে ব্যবহার করা হচ্ছিল।

গ্রেফতার সবাইকে মালয়েশিয়ার অভিবাসন আইন ১৯৫৯/৬৩ এর ৫ম ধারার ২ উপধারায় অভিযোগ গঠন করে ১৪ দিনের রিমান্ডে নেওয়া হয়েছে।

এদিকে অবৈধ শ্রমিক নিয়োগ দেওয়ায় মালয়েশিয়ান নারীর বিরুদ্ধে ১৯৫৯/৬৩ ধারা এবং মানি লন্ডারিংসহ অন্যন্য অপরাধের জন্য ২০০১ এর ৬১৩ ধারায় অভিযোগ গঠন করেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন