সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ০১:৫৩ পূর্বাহ্ন

বগুড়ার সোনাতলা উপজেলার প্রেমিকাকে আইফোন কিনে দিতে এক কলেজ ছাত্রের অপহরণের নাটক। নিজেকে অপহরণের নাটক সাজিয়ে বাবার কাছ থেকে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের চেষ্টা করা হয়েছে।

মারপিটের অভিনয়ে এবং মোবাইল ফোনে ছেলের কান্নাকাটির শব্দ শুনে মুক্তিপণের টাকা নিয়েও প্রস্তুত ছিলো তার পরিবার। তবে শেষ পর্যন্ত র‍্যাবের হস্তক্ষেপে ভেস্তে যায় রাকিবুল ইসলাম রিয়াদ নামের ওই কলেজ ছাত্রের এই অপহরণ নাটক।

র‍্যাব-১২’র বগুড়া স্পেশাল কোম্পানির কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গত শনিবার (২৪ জুলাই) সরকারি আজিজুল হক কলেজের স্নাতক দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সোনাতলা উপজেলার বাসিন্দা রাকিবুল ইসলাম রিয়াদ তার বাড়ি থেকে বাইরে যাবার পর নিখোঁজ হন। পরদিন তার পরিবার এই ঘটনায় সোনাতলা থানায় সাধারণ ডায়েরিও করেন।

সোমবার (২৬ জুলাই) সকালে রিয়াদের মোবাইল ফোন থেকে তার বাবা ওবাইদুল ইসলামকে ফোন করে এক যুবক এক লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এসময় ফোনে রিয়াদকে মারপিট করার শব্দ এবং কান্নার আওয়াজও শোনায় ওই যুবক।

ছেলের এই অবস্থা জেনে তার বাবাসহ পরিবারের সদস্যরা একলাখ টাকা যোগাড় করে মুক্তিপণ দিতে রাজিও হন। এর মাঝে আরো কয়েক দফা মারপিটের শব্দও শোনানো হয় ফোনে। পরে রিয়াদের পরিবার বিষয়টি র‍্যাবকে জানালে রিয়াদের অনুসন্ধান শুরু করে র‍্যাব-১২’র গোয়েন্দা দল।

তারা বগুড়া ও জয়পুরহাটের বেশ কয়েকটি স্থানে অভিযান চালিয়ে শেষ পর্যন্ত গতকাল মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) দুপচাঁচিয়া উপজেলা থেকে রিয়াদকে তার বন্ধু মুন্না হাসানসহ উদ্ধার করেন র‍্যাব সদস্যরা।

উদ্ধারের পর রিয়াদ জানান, প্রেমিকাকে আইফোন উপহার দেয়ার একলাখ টাকা যোগাড় করতে এই অপহরণ নাটক সাজিয়েছিলেন। প্রথম দুদিন দুই বন্ধু মিলে মোটরসাইকেল নিয়ে বগুড়া-জয়পুরহাটের বিভিন্ন এলাকায় ঘুরেছেন। এরপর বাবাকে ফোন দিয়ে মুক্তিপণ দাবি করেছেন। ফোনে তার বন্ধু মুন্না অপহরণকারী সেজে মারপিটের শব্দ করেছেন আর তিনি পাশ থেকে কান্নার আওয়াজ করেছেন।

মঙ্গলবার (২৭ জুলাই) রাতে রিয়াদ ও মুন্নার পরিবার মুচলেকা দিয়ে তাদের দুজনকে বাসায় নিয়ে গেছেন বলে জানিয়েছেন র‍্যাব কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন