সোমবার, ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:২২ পূর্বাহ্ন

লালমনিরহাট রেলওয়ের টিকিট বিক্রির প্রায় ৩৪ লাখ টাকা বুকিং সহকারী মিশুক আল মামুনের বিরুদ্ধে আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

শুক্রবার (৮ অক্টোবর) রাতে রেলওয়ের লালমনিরহাট বিভাগের ম্যানেজার শাহ সুফী নুর মোহাম্মদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন । এ ঘটনায় কাউনিয়া স্টেশন মাস্টার বাব আল রশিদকে দায়িত্বে অবহেলার অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত মিশুক আল মামুন কুড়িগ্রামের চর বজরা গ্রামের মনছুর কাদেরের ছেলে। মিশুক গত ১০ আগস্ট থেকে ১ অক্টোবর পর্যন্ত রেলওয়ের আয়ের ৩৩ লাখ ৮৫ হাজার ৫০০ টাকা জমা দেননি। কর্তৃপক্ষ বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষনিক ডেকে টাকা ফেরতের জন্য তাগিদ দেন। তখন মিশুক টাকা ফেরতে সময় চেয়ে মুচলেকা দেন। পরে মিশুক নির্ধারিত সময়ে টাকা ফেরত দিতে ব্যর্থ হয়।

গত সোমবার (৪ অক্টোবর) লালমনিরহাট রেলওয়ে থানায় জুনিয়র ট্রাফিক ইন্সপেক্টর সহির উদ্দিন তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন।

ওই দিন রেলওয়ের কর্মকর্তারা মামুনকে পুলিশে সোপর্দ করে। পরদিন মঙ্গলবার (৫ অক্টোর) পুলিশ মামুনকে আদালতে হাজির করলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

লালমনিরহাট বিভাগের ম্যানেজার শাহ সুফী নুর মোহাম্মদ বলেন, সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে মামুনকে। কাউনিয়া স্টেশন মাস্টার বাব আল রশিদের গাফলতির কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে এমন মনে হওয়ায় তাকেও সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধেও বিভাগীয় মামলা হবে।

লালমনিরহাট রেলওয়ে স্টেশনের বুকিং সহকারী জাকির হোসেন জানান, টিকিট বিক্রি ও মালামাল পরিবহনের ভাড়া নির্দিষ্ট ব্যাগে ভরে সিলগালা করে রেলওয়ের নির্দিষ্ট ট্রেনে পশ্চিমাঞ্চল জোনের পে এন্ড ক্যাশ অফিসে পাঠানোর নিয়ম রয়েছে। কিন্তু মামুন এসবের কিছুই করেননি।

লালমনিরহাট রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বাহারুল ইসলাম বলেন, রেলওয়ের অভিযোগ সাধারণ ডায়েরি হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। মামুনকে আটকের পর ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে দুদকে মামলা হস্তান্তরের আবেদন করা হয়েছে। এখন মামলাটি দুদক (দুর্নীতি দমন কমিশন) তদন্ত করবে।

আরও পড়ুন