বৃহস্পতিবার, ৩০ Jun ২০২২, ১০:৪৫ অপরাহ্ন

জয়পুরহাটের ক্ষেতলালে অসামাজিক কা’র্যকলাপে জড়িয়ে পড়া মেয়েকে পু’লিশের হাতে তুলে দিয়েছেন এক বাবা। পাশাপাশি মেয়ের যৌ’ন সঙ্গীকেও ধরিয়ে দিয়েছেন তিনি।

শুক্রবার (৩ ডিসেম্বর) উপজেলার দক্ষিণ তাউসারা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা যায়, শুক্রবার রাত ১১টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার মামুদপুর ইউনিয়নের তাউসারা গ্রামের সুলতান শাহ’র বাড়িতে অভিযান চালায় পুলি’শ। এসময় তার মেয়ে মৌসুমি সুলতানার (ছদ্মনাম) শয়ন কক্ষ থেকে আপ’ত্তিকর অবস্থায় তোরাফ মন্ডল ও মৌসুমিকে (২৪) আ’টক করে পু’লিশ।

আ’টক তোরাফ মণ্ডল (৩৫) উপজেলার বারইল নয়াপাড়া গ্রামের মৃত মেহের আলী মন্ডলের ছেলে।

মেয়ের বাবা ও থা’নায় অভিযোগ সুত্রে জানা গেছে, মৌসুমি সুলতানা দীর্ঘদিন যাবৎ মালয়েশিয়া ছিলেন। গত নভেম্বর মাসে দেশে ফিরে সে। বাড়ী ফিরে আসার পর থেকেই বিদেশী স্টাইলে ও বেপরোয়াভাবে চলাফেরা করার পাশাপাশি অসামাজিক কাজে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন।

এক সময় এলাকার বিভিন্ন বয়সী ছেলেদের সাথে অসামাজিক কার্যকলাপে লি’প্ত হয় সে এবং মাদ’কের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। পরিবারের লোকজন তাকে বারবার নিষেধ করলে কাজ হয় না। বরং সে সহযোগীদের নিয়ে মা এবং বাবাকে মা’রধর করেন। এতে অতিষ্ঠ হয়ে তার বাবা বাধ্য হয়ে নিজ মেয়ের বিরুদ্ধে থা’নায় অভিযোগ করে।

এ ঘটনায় থা’না পুলি’শের পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম ফোর্স নিয়ে গত শুক্রবার রাত ১১টায় অভিযান চালিয়ে নিজ শয়ন ঘর থেকে আপ’ত্তিকর অবস্থায় উপজেলার বারইল নয়াপাড়া গ্রামের মেহের আলী মন্ডলের ছেলে তোরাব উদ্দিন মন্ডল (৩৫) ও মৌসুমী সুলতানাকে আট’ক করেন।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত মৌসুমি সুলতানা বলেন, বিদেশ থেকে দেশে ফেরার পর তোরাব উদ্দিন মন্ডলকে গোপনে বিয়ে করি। কিন্তু আমার সাথে বাবার ঝগড়া হওয়ায় তিনি থা’নায় মিথ্যে অভিযোগ করেছেন।

এ নিয়ে জানতে চাইলে পরিদর্শক (তদন্ত) শাহ আলম বলেন, মেয়ের বাবার অভিযোগের ভিত্তিতে তার নিজ বাড়ি থেকে তাদের দু’জনকে হাতেনাতে আট’ক করা হয়েছে। তারা বিয়ের বৈধ কোন প্রমাণ দিতে না পারায় তাদের মাম’লা দিয়ে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন