শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ১১:১০ অপরাহ্ন

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে আগামী ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত ক্লাস চালবে বলে জানিয়েছেন প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম। এর আগে আগামীকাল রবিবার থেকে বার্ষিক শীতকালীন ছুটি শুরু হবার কথা ছিল। এরই মধ্যে মূল্যায়ন শেষ করে শিক্ষার্থীদের ছুটি দিয়ে দেন প্রধান শিক্ষকরা।

এর একদিন আগে শনিবার প্রাথমিকের বিভাগীয় উপ-পরিচালকরা প্রধান শিক্ষকদের নির্দেশ দিয়েছেন ক্লাস চালিয়ে যেতে। এতে চরম বিপাকে পড়েছেন শিক্ষকরা। এ বিষয়ে আজ শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক আলমগীর মুহম্মদ মনসুরুল আলম বলেন, যেহেতু এ বিষয়ে একটি বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে, তাই এখনই আমরা একটি সার্কুলার জারি করছি। ২৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত ক্লাস চলবে। ২৪ থেকে ২৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত শীতকালীন ছুটি থাকবে।

আরও পড়ুন=‘করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) ওমিক্রন ধরনের জেরে সারাবিশ্বে সংক্রমণ আবারও বাড়ছে। নতুন উদ্বেগজনক এই ধরনটিকে বুঝতে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ও বিজ্ঞানীরা কাজ করে যাচ্ছেন। অনিশ্চয়তা বাড়তে থাকায় অনেক সরকারই স্কুল খোলা রাখা হবে কি না, তা নিয়ে চিন্তা করছে। এ অবস্থায় একটি জিনিস আমরা নিশ্চিতভাবে জানি, ব্যাপকভাবে স্কুল বন্ধের আরেকটি ঢেউ শিশুদের জন্য সর্বনাশা হবে।’

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ‘প্রমাণ স্পষ্ট: দীর্ঘায়িত, দেশব্যাপী স্কুল বন্ধ; ছাত্র, শিক্ষক, অভিভাবকদের জন্য সীমিত সম্পদ, দূরবর্তী শিক্ষার সুযোগের অভাব শিক্ষাখাতে কয়েক দশকের অগ্রগতি মুছে দিয়েছে। শিশুশ্রম, বাল্যবিবাহ ও মানসিক সমস্যাগুলো ছায়া মহামারির রূপ ধারণ করেছে।’
‘শিক্ষার সুযোগ হারানো ছাড়াও শিশুরা স্কুলের নিরাপত্তা, বন্ধুদের সঙ্গে প্রতিদিন সশরীরে যোগাযোগ, স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ এবং অনেক ক্ষেত্রে দিনের একমাত্র পুষ্টিকর খাবারও হারিয়েছে।’

‘করোনাকালে এ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের যে ক্ষতি হয়েছে, আর্থিকমূল্য বিচার করলে তার পরিমাণ সম্মিলিতভাবে ১৭ লাখ কোটি মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে যাবে। এই অর্থ তারা সারাজীবনে আয় করতে পারত। এ কারণেই যতদিন সম্ভব দেশব্যাপী স্কুল বন্ধ করা ঠেকিয়ে রাখা উচিত।

আরও পড়ুন