বৃহস্পতিবার, ০৭ Jul ২০২২, ০২:১০ অপরাহ্ন

ঠাকুরগাঁওয়ে অগ্রিম টাকা নিয়েও বক্তা ওয়াজ মাহফিলে আসেননি বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ইসলামি বক্তা ইলিয়াসুর রহমান জিহাদীর বিরুদ্ধে এ অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় অগ্রিম দেওয়া টাকা ফেরত ও বক্তাকে বয়কটের আহ্বান জানিয়ে শাস্তি দাবি করেছেন এলাকাবাসী।

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) বিকেলে ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার শিবগঞ্জের আমতলীতে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার (১৪ ডিসেম্বর) শিবগঞ্জের আমতলী এলাকায় মহেশপুর জামে মসজিদের উদ্যোগে তৃতীয় বার্ষিক ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মাহফিলে প্রধান আলোচক হিসেবে আলোচনা রাখার কথা ছিল ইসলামি বক্তা ইলিয়াসুর রহমান জিহাদীর। আসার কথা বলে অগ্রিম টাকাও নিয়েছেন তিনি। তবে অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে মাহফিলে আসতে অস্বীকৃতি জানান। তবে একই সময়ে ওই বক্তা অন্য জায়গায় একটি মাহফিল করেছেন বলে নিশ্চিত হয় এলাকাবাসী।

এ বিষয়ে মাহফিল কমিটির সাধারণ সম্পাদক দবিরুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা সবাই মিলে ইলিয়াসুর রহমান জিহাদীর সঙ্গে কয়েক দফায় যোগাযোগ করি। মাহফিলে আসার জন্য দুইবারে আমরা তাকে ৮০ হাজার টাকা দেই। কিন্তু তিনি মাহফিলে আসেননি। আমরা খবর পেয়েছি তিনি বেশি অংকের টাকা পেয়ে সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার জালালপুরে মাহফিল করেছেন। আমরা তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

স্থানীয় আহসান হাবীব বলেন, ‘আমরা এলাকার যুবসমাজ ১৫ থেকে ২০ দিন থেকে অক্লান্ত পরিশ্রম করে মাহফিলের আয়োজন করি। আমরা অনেক আনন্দিত ছিলাম। আমাদের সবার বাসায় বিভিন্ন জায়গা থেকে অতিথিরা এসে জড়ো হয়েছিলেন। কিন্তু ৮০ হাজার টাকা নিয়েও তিনি মাহফিলে না এসে আমাদের সঙ্গে প্রতারণা করেছেন। আমরা টাকা ফেরত চাই এবং সারাদেশে বয়কট করা হোক ইলিয়াসুর রহমান জিহাদীকে।’

মাহফিলের স্বেচ্ছাসেবক মনারুল ইসলাম বলেন, ‘তিনি আমাদের কাছে ৮০ হাজার টাকা নিয়েছেন। কিন্তু মাহফিলে আসেননি। আমাদের সঙ্গে উনি বাটপারি ও প্রতারণা করেছেন। তিনি বলেছেন অসুস্থ কিন্তু একইদিনে আরেক জায়গায় মাহফিল করেছেন বলে আমরা নিশ্চিত হয়েছি।’

মাহফিল কমিটির সার্বিক তত্ত্বাবধায়ক রবিউল ইসলাম বলেন, ‘ইলিয়াসুর রহমান জিহাদী ১৩ তারিখে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে মাহফিল করেন। সেসময় আমরা তার সঙ্গে কথা বলি। তিনি আমাদের কথা দেন এবং ওই মাহফিল মঞ্চেই আমাদের মাহফিলে আসার জন্য মানুষকে দাওয়াত করেন। কিন্তু তিনি আসেননি, যার সব প্রমাণ আমাদের হাতে আছে। তিনি টাকা নিয়েও আমাদের মাহফিলে আসেননি। আমরা আমাদের টাকা ফেরত চাই এবং তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

এ বিষয়ে জানতে রোববার (১৯ ডিসেম্বর) ইলিয়াসুর রহমান জিহাদীর সঙ্গে মোবাইলে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন ধরেননি। – জাগোনিউজ২৪

আরও পড়ুন