সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ০৬:১৭ অপরাহ্ন

মানুষের ভাগ্যে কি লেখা আছে কেও জানেনা। আজকের ফকির কাল বড়লোক। তেমনি লটারির টিকিট কেটে রাতারাতি কোটিপতি দিনহাটার ভ্যানচালক ফজলে মিয়া! ৬৮ বছরের অশক্ত শরীরে ভ্যান টেনে সংসার চালাতেন। দিনরাত পরিশ্রম করেও অনটন পিছু ছাড়ত না। এ বার তা থেকে পাকাপাকি ভাবে মুক্তি।ভ্যান টেনে কিছুতেই অভাব মিটত না ফজলে মিয়ার। তাই মাঝে মাঝেই খেলার ছলে লটারি কাটতেন।

পুরস্কার জুটত না কোনওদিনই। কিন্তু শুক্রবার দিনটাই ছিল অন্যরকম।৬০ টাকার লটারি কিনে বর্তমানে কোটিপতি ফজলে মিয়া। রাতারাতি এক কোটি টাকা পেয়ে এলাকায় মধ্যে তারকার মর্যাদা পাচ্ছেন সত্তর ছুঁই ছুঁই ফজলে। কোটি টাকা পেয়েছেন জানার পরই লটারি টিকিট বগলদাবা করে পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন। বলেছেন, ‘‘এ টিকিট কাছে রাখলে রাতের ঘুম উড়বে। তাই দিনহাটা থানায় টিকিট জমা দিয়ে বাড়ি যাচ্ছি।’’

আরও পড়ুন=মানুষের ক্ষমতা ও সক্ষমতা খুবই সীমিত। বিপরীতে মহান আল্লাহ সৃষ্টিজগতের ওপর সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। ফলে জাগতিক জীবনে আল্লাহর কাছে আত্মসমর্পণই বান্দার জন্য সার্বিক বিবেচনায় কল্যাণকর।আল্লাহর আশ্রয় বান্দার জন্য সবচেয়ে নিরাপদ স্থান। শুধু তা-ই নয়, এটাই মুমিনের বৈশিষ্ট্য। মহান আল্লাহ বলেন, ‘আমি তোমাদেরকে কিছু ভয়, ক্ষুধা এবং ধনসম্পদ, জীবন ও ফল-ফসলের ক্ষয়ক্ষতি দ্বারা অবশ্যই পরীক্ষা করব।তবে আপনি সুসংবাদ দিন ধৈর্যশীলদের, যারা বিপদে

পতিত হলে বলে—আমরা তো আল্লাহরই এবং নিশ্চিতভাবে আমরা তাঁরই কাছে ফিরে যাব এমন লোকদেরই প্রতি তাদের প্রতিপালকের পক্ষ হতে বিশেষ অনুগ্রহ ও রহমত বর্ষিত হয়। আর এরাই সৎপথপ্রাপ্ত।’ (সুরা: বাকারা, আয়াত : ১৫৫-১৫৭)বিপদে ধৈর্য ধারণ করা মানে আল্লাহর ফায়সালা বলে মেনে নেওয়া এবং আল্লাহর পক্ষ হতে বিনিময় লাভের আশা রাখা। রাসুলুল্লাহ (সা.) বলেছেন, মুমিনের এই বিষয়টি কত আনন্দের যে, সকল অবস্থাই তার জন্য কল্যাণকর। আর তা মুমিন ছাড়া অন্য কারো

প্রাপ্য নয়। কেননা মুমিন যখন আনন্দিত তখন সে আল্লাহর শোকর আদায় করে। ফলে তা তার জন্য কল্যাণকর হয়। তদ্রূপ যখন সে বিপদের সম্মুখীন হয় তখন ধৈর্য ধারণ করে।

সুতরাং এ অবস্থাও তার জন্য কল্যাণকর হয়ে যায়। (সহিহ মুসলিম)ঈমানদারদের জন্য এটা বড় আনন্দের বিষয় যে পার্থিব কোনো ক্ষতিই তাদের জন্য প্রকৃত ক্ষতি নয়। প্রকৃত ক্ষতি তো কেবল অবিশ্বাসীদের জন্য। আর মুমিনের জন্য রয়েছে সর্বাবস্থায় আনন্দ ও তৃপ্তি।

আরও পড়ুন