সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ০৫:১৬ অপরাহ্ন

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের মূলহোতা দশের বাবু ও তার ৮ সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব-২। বুধবার (১৯ জানুয়ারি) তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে র‌্যাবের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

র‌্যাবের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গ্রেপ্তাররা জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়- তারা ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের সক্রিয় সদস্য। এই দলের সদস্যরা সংঘবদ্ধ অপরাধী চক্র। দলের মূলহোতা গ্রেপ্তার বাবু ওরফে দশের বাবু। তারা দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর মোহাম্মদপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড, মাদক কেনাবেচা, ছিনতাই ও চাঁদাবাজি কার্যক্রম চালিয়ে আসছে।

র‌্যাবের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, গত ৩১ ডিসেম্বর রাতে মোহাম্মদপুর থানাধীন নবী নগর হাউজিং এলাকায় একদল সন্ত্রাসী দোকানপাট, বাড়িঘর ভাঙচুর এবং ছিনতাই করে। পরবর্তীতে র‍্যাবের কাছে স্থানীয়দের থেকে একটি অভিযোগ পাওয়া যায়। এছাড়া বিভিন্ন পত্রিকা, প্রিন্ট মিডিয়ায় এব্যাপারে সংবাদ প্রচার হলে র‍্যাব-২ বিভিন্ন আলামত, ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করে এবং গোয়েন্দা তৎপরতা ও ছায়া তদন্ত বৃদ্ধি করে। পরবর্তীতে গত ১৬ জানুয়ারি আবারও মোহাম্মদপুর থানাধীন নবী নগর হাউজিং এলাকায় একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে মারামারি, ভাঙচুর, ছিনতাই কার্যক্রমের অভিযোগ পাওয়া যায়। পরে র‌্যাব-২ এর অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- বাবু ওরফে দশের বাবু (২৬), মো. ফোরকান (২২), মো. পলাশ (২৩), মো. সুমন (২২), মো. সাগর, মো. রাজন (২৩), মো. নাজিম (২৪), শাকিল (২০), মিলন (২১)।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়েছে, ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের প্রধান বাবু ওরফে দশের বাবুকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়- ২০০০ সালে তার মায়ের সাথে নড়াইল থেকে ঢাকায় আসে। ঢাকায় এসে প্রথমে তার মায়ের সাথে থাকতে শুরু করে। পরবর্তীতে সে গাড়ির হেলপার, হোটেল পরিষ্কারের চাকরিসহ বিভিন্ন পেশায় নিয়োজিত ছিল। পরবর্তীতে মাদকের টাকার জন্য ছোট ছোট চুরি, ছিনতাই এর মাধ্যমে অপরাধ জগতে হাতেখড়ি হয়। ২০১৪ সালে ‘ভাইব্বা ল কিং’ কিশোর গ্যাং এর সঙ্গে পরিচয় হয়। পরবর্তীতে এই বাহিনীতে যোগ দিয়ে অপরাধের মাত্রা আরও বেড়ে যায়। সে ওই বাহিনীর সঙ্গে মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন এলাকায় ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাবাজি, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড এবং মাদক কেনাবেচায় জড়িয়ে পড়ে। এক সময় তার কুখ্যাতি চারদিকে ছড়িয়ে পড়লে অপরাধ জগতে সে ‘দশের বাবু’ নামে খেতাব পায়।

র‌্যাব জানায়, পরবর্তীতে তাদের নিজেদের মধ্যে বিরোধে ‘ভাইব্বা ল কিং’ গ্রুপ থেকে আলাদা হয়ে ২০১৭ সাল হতে ‘লও ঠেলা’ গ্রুপে গড়ে তোলে। বাবু বখে যাওয়া ছেলেদের তার গ্রুপে যোগদান করাত। মোহাম্মদপুরের ঢাকা উদ্যান, বসিলা, চাঁদ উদ্যান এলাকায় ডাকাতি, চাঁদাবাজি, ছিনতাই, মাদক ব্যবসাসহ বিভিন্ন অপরাধে সম্পৃক্ত ‘লও ঠেলা’ গ্রুপ। এ ছাড়াও, জবর দখল, ভাড়ায় শক্তি প্রদর্শন এবং আধিপত্য বিস্তারসহ নানা অপকর্মে তাদের ব্যবহার করে বাবু। বাবুর বিরুদ্ধে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় অস্ত্র, ডাকাতি, দস্যুতা, মাদক, ছিনতাইসহ ৬টি মামলা আছে।

আরও পড়ুন