শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ০৪:২৩ পূর্বাহ্ন

পিঠসহ পুরো শরীর জুড়ে বে’ত্রাঘা’তের চিহ্ন। খুলনার রূপসা উপজেলার শ্রীফলতলা ইউনিয়নের শ্রীফলতলা গ্রামে হাফেজিয়া মাদ্রাসার এক শিশু শিক্ষার্থীকে এভাবেই পে’টানোর অভিযোগ উঠেছে প্রতিষ্ঠানটির এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। গত তিন বছর ধরে সে ওই প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করছে। সহপাঠীদের সঙ্গে দুষ্টুমি করায় গত রোববার তাকে শিক্ষক মেহেদী হাসান বেধম বেত্রাঘাত করেন বলে তার পরিবারের অভিযোগ।

রূপসার ঘাটভোগ ইউনিয়নের আনন্দনগর মেঝোঝিলার রউফ শেখ ও লিপি বেগমের সন্তান সাব্বির বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন। নি’র্যাত‌নের ঘটনায় সোমবার সাব্বিরের মা লিপি বেগম বা‌দী হ‌য়ে রূপসা থানায় লি‌খিত অভিযোগ দায়ের ক‌রেন। অভি‌যোগটি মামলার এজাহার হি‌সে‌বে রেকর্ড ক‌রেছেন থানা পুলিশ।

লিপি বেগম বলেন, সহপাঠীদের সঙ্গে দুষ্টুমি করায় তার ছেলেকে বেত দিয়ে পি’টিয়ে অমা’নুষিক নি’র্যাতন করছে মেহেদী হুজুর। একপর্যায়ে সাব্বির পালিয়ে তার গ্রামের বাড়ি আনন্দনগরে চলে আসে। গুরুতর জখম অবস্থায় তাকে রূপসা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ক‌রা হয়। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত মাদ্রাসা শিক্ষকের উপযুক্ত শাস্তি চেয়েছেন ভুক্তভোগীর পরিবার ও এলাকাবাসী।

ঘটনার পর থেকে শিক্ষক মেহেদী পলাতক। তাকে কোথাও খোঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তার মোবাইলটিও বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে। রূপসা থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন জানান, মাদ্রাসা ছাত্রকে পি’টিয়ে গুরুতর জখম করার অভিযোগ করেছেন শিশুটির মা। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়ে‌ছে।

আরও পড়ুন