রবিবার, ০৩ Jul ২০২২, ০৩:২০ অপরাহ্ন

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনকে ঘিরে এখন উত্তপ্ত সিনেমাপাড়া। নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে পরাজিত প্রার্থী চিত্রনায়িকা নিপুণ দাবি করেছেন জায়েদ খান চক্রান্ত করেছেন। নানা ষড়যন্ত্র করে ভোটে জিতেছেন। গতকাল রবিবার ৩০ জানুয়ারি জাতীয় প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে জায়েদ খানের সঙ্গে উচ্চ পর্যায়ের কোনো এক ব্যক্তির আলাপের স্ক্রিনশট ফাঁস করেন নিপুণ।

সেখানে দেখা যায়, কাঞ্চন-নিপুণ প্যানেলকে হারানোর জন্য অপকৌশল অবলম্বন করছেন জায়েদ। এছাড়া জায়েদের বিরুদ্ধে আরও কিছু অভিযোগ আনেন নিপুণ। এরপর গতকাল সন্ধ্যায় বিএফডিসিতে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন জায়েদ খান। স্ক্রিনশটগুলো তার নয় এবং সুপার এডিট করা হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি। এছাড়া নিপুণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে নিজের বক্তব্য তুলে ধরেন জায়েদ। মামলা করবেন বলেও জানান এই নায়ক।

জায়েদ খান বলেন, শিল্পীরা আমাকে ভালোবাসে। তাদের ভোটেই তৃতীয়বার নির্বাচিত হয়েছি৷ আগামীতেও যদি নির্বাচন করি আত্নবিশ্বাস আছে শিল্পীরা আমাকে নির্বাচিত করবেন।

তিনি বলেন, নির্বাচন ঘিরে এক মাস ধরেই নোংরা ভিত্তিহীন কথা ছড়ানো হচ্ছে। এত কিছুর পরও আমাকে শিল্পীদের ভোটে নির্বাচিত হয়েছি। পরাজিত হয়ে অনেক কথা বলছেন। তাদের অনেক প্রার্থীই পাশে ছিল। তখন তারা কেন অভিযোগ করেনি? এসব অভিযোগ আগে আসেনি কেন? শিল্পীরা টাকায় বিক্রি হয় না৷ তারা একটু ভালোবাসা চায়। আমাদের কাজে সহযোগিতা করতে দুই প্যানেলকেই সাত জন করে লোক রাখার অনুমতি ছিল। এর বাইরে আমাদের কোনো লোক ছিল না।

আপনি এফডিসির এমডি, নির্বাচন কমিশন একটি গ্যাংক, ১৭ সংগঠনদের এফডিসির প্রবেশে বাধা এবং প্রশাসন আপনার কথায় মোতায়েন করা হয়েছে। এই অভিযোগ প্রসঙ্গে শিল্পী সমিতির এই নেতা বলেন, আমার তাহলে এতো ক্ষমতা, আমি তাহলে এফডিসিতে কেন? আমার তো সংসদে থাকা উচিৎ, আমি এই ছোট জায়গায় কেন। আমার তো এমপি নির্বাচন কিংবা তার চেয়ে বড় কিছু জায়গায় থাকা দরকার।

তিনি আরও বলেন, এফডিসির ছোট একটি সংগঠন শিল্পী সমিতি। নির্বাচন কমিশন নির্বাচন সুস্থ করতে যা করার দরকার ছিল তাই করেছেন। আইনশৃংখলা বাহিনী, নির্বাচন কমিশন দুই পক্ষ নিয়ে বসেই সবকিছুর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রিয়াজ ভাইসহ অনন্য শিল্পীরা বলেছিলেন এবারের মতো সুস্থ নির্বাচন আর দেখিনি। এখানে আমার ব্যক্তিগত কোনো হাত নেই। তার সকল অভিযোগ ভিত্তিহীন।

আরও পড়ুন