বৃহস্পতিবার, ৩০ Jun ২০২২, ১০:০৯ অপরাহ্ন

যশোরের নওয়াপাড়া ভৈরব নদে ইউরিয়া সারবোঝাই একটি জাহাজ ডুবে গেছে। এ সময় বিসিআইসির (বাংলাদেশ কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশন) কাতার থেকে আমদানি করা ৬৪০ মেট্রিক টন ইউরিয়া সার ছিল।

বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) বিআইডব্লিউটিএ’র সহকারী পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। এর আগে বুধবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে উপজেলায় ন্যাপরা এলাকায় পীরবাড়ি খেয়াঘাটের পাশে ভৈরব নদে এম ভি শারিব বাঁধন নামের জাহাজটি ডুবে যায়। ওই ইউরিয়া চট্টগ্রামভিত্তিক শিপিং কোম্পানি টোটাল শিপিং পরিবহন করছিল।

জানা গেছে, এমভি শাবিব বাঁধন নামে ওই জাহাজে বাংলাদেশ কেমিকেল ইন্ডাস্ট্রিজ করপোরেশনের (বিসিআইসি) কাতার থেকে আমদানি করা ৬৪০ মেট্রিক টন ইউরিয়া সার ছিল। চট্টগ্রামভিত্তিক শিপিং কোম্পানি টোটাল শিপিংকে ওই ইউরিয়া সার পরিবহনের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল। কাতার থেকে আমদানি করা ইউরিয়া বড় জাহাজে করে চট্টগ্রামে আনা হয়। সেখানে বড় জাহাজ থেকে ৬৪০ মেট্রিক টন (১২ হাজার ৮০০ বস্তা) ইউরিয়া সার ছোট জাহাজ এমভি শাবিব বাঁধনে তোলা হয়।

গত ২১ জানুয়ারি জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দর থেকে রওনা দিয়ে ২৫ জানুয়ারি যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া পীরবাড়ি খেয়াঘাট এলাকায় ভৈরব নদের ঘাটে এসে নোঙর করে। জাহাজ থেকে ইউরিয়া ঘাটে নামানোর জন্য গত বুধবার দুপুরে জাহাজটি তীরের কাছে আনা হয়।

আজ বৃহস্পতিবার (৩ ফেব্রুয়ারি) সকালে জাহাজ থেকে ইউরিয়া সার ঘাটে নামানোর কথা ছিল। তবে জাহাজে থাকা ইউরিয়া সার গলে নদের পানিতে ছড়িয়ে পড়েছে। এতে ভৈরব নদের পানি দূষিত হয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এম ভি শারিব বাঁধনের মাস্টার শরীফ হোসেন বলেন, ‘ভৈরব নদের ঘাটে জাহাজটি বাঁধা ছিল। জাহাজে ৬৪০ মেট্রিক টন ইউরিয়া ছিল। জাহাজ থেকে ইউরিয়া নামানোর অপেক্ষায় ছিল। বুধবার (২ ফেব্রুয়ারি) রাতে জাহাজের তলা ফেটে পানি উঠতে শুরু করে। এ সময় নদে পানি কম ছিল। রাত সাড়ে ১২টা থেকে জাহাজটি আস্তে আস্তে ডুবতে শুরু করে এবং রাত ২টার দিকে জোয়ারে জাহাজটি নদের পানিতে সম্পূর্ণ ডুবে যায়।’

এ বিষয়ে বিআইডব্লিউটিএ’র সহকারী পরিচালক মো. মাসুদুর রহমান বলেন, দুর্ঘটনাকবলিত স্থানে লোকজন পাঠানো হয়েছে। তারা পরিদর্শন করে আসার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আরও পড়ুন