সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ০৯:০৯ অপরাহ্ন

নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গের কারণে জায়েদ খানের সাধারণ সম্পাদক পদ বাতিল করা হয়েছে। তার পরিবর্তে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিপুণ এ পদে জয়ী হয়েছেন।

যে জায়েদ খানের ওপর বিরক্ত হয়ে তার মা বলে গিয়েছিলেন, বিয়ে না করে শিল্পী সমিতি নিয়েই থাকতে, পদ হারানোর পর সেই জায়েদ এখন কী নিয়ে থাকবেন, সেটি নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে।

শিল্পী সমিতি নিয়ে নিজ অনুরাগের কথা অনেকবারই বলেছেন জায়েদ খান। তিনি বলেছিলেন, শিল্পী সমিতি তার ভালোবাসার জায়গা হয়ে গেছে। তিনি সমিতির জন্য অনেক কাজ করেছেন বলেই তৈরি হয়েছে এতো শত্রু। এছাড়া শিল্পী সমিতির নির্বাচনে জয়লাভের ব্যাপারে বরাবরই আত্মবিশ্বাসী জায়েদ নির্বাচনের পরদিন বলেছিলেন, আমি না জিতলে কে জিতবে? আমি কাজ করেছি, তাই জিতেছি। আগামীবারও ভোটে দাঁড়ালে জিতবো।

তবে এসব আত্মবিশ্বাস দিনশেষে খুব একটা কাজে লাগেনি জায়েদ খানের জন্য। শনিবার (৫ ফেব্রুয়ারি) আপিল বোর্ডের চেয়ারম্যান সোহানুর রহমান সোহান অর্থের বিনিময়ে ভোট কেনার দায়ে বিজয়ী প্রার্থী জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিল করার ঘোষণা দেন। তিনি জানান, জায়েদ খানের কাছে অর্থ পাওয়ার বিষয়টি দু’জন ভোটার আমাদের জানিয়েছে। এছাড়া, কিছু ভিডিও ফুটেজে আমরা এর প্রমাণ পেয়েছি। যা গঠনতন্ত্রের ১০ নম্বর ধারার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। এজন্য তার প্রার্থিতা বাতিল করা হলো। আর ১৬৩ ভোট পাওয়া সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নিপুন আক্তারকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত করা হলো।

আরও পড়ুন