শনিবার, ০২ Jul ২০২২, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন

রাজধানীতে পাঁচতারকা হোটেলে অ’নৈতিক কর্মকাণ্ড পরিচালনা ও বাসায় অ’বৈধ অস্ত্র রাখার দায়ে কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী শামিমা নূর পাপিয়ার হাজতের ড্রেসিংরুমে দুই যুবকের সঙ্গে গোপন বৈঠক করার অভিযোগ উঠেছে।

রোববার পুরান ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের নারী হাজতখানার ড্রেসিংরুমে এই বৈঠক হয়। দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা বৈঠকের বিষয়টি ‘তুচ্ছ বিষয়’ বলে উড়িয়ে দেন।

ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩ এর বিচারক মোহাম্মদ আলী হোসাইনের আদালতে আজকে পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমানের বিরুদ্ধে অ’বৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ মামলার সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ ছিল। কিন্তু বিচারক অসুস্থ হওয়ায় সাক্ষ্যগ্রহণ সম্ভব হয়নি। তবে সকাল ১০টায় ভারপ্রাপ্ত বিচারক এ এস এম রুহুল ইমরান আগামী ১৬ মার্চ সাক্ষ্যগ্রহণের তারিখ নির্ধারণ করেন। এরপর আসামিদের আবার হাজতখানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

দুপুরের দিকে পাপিয়া হাজতখানার ড্রেসিংরুমে বেঞ্চে বসে কফি পান করছেন আর দুই যুবকের সঙ্গে কথা বলছেন। তবে সাংবাদিকদের উপস্থিতি দেখতে পেয়ে হাজতখানার ইনচার্জ নৃপেন কুমার বিশ্বাস পাপিয়াসহ তিনজনকে সতর্ক করেন।

আদালতের অনুমতি ছাড়া আসামির সঙ্গে বৈঠক করা যায় কি না সাংবাদিকের এমন প্রশ্নে নৃপেন কুমার বিশ্বাস বলেন, তারা আমাদের স্পেশাল গেস্ট।

পাপিয়ার সঙ্গে আলোচনা করা ওই দুই যুবক নারী হাজতখানার ড্রেসিংরুম থেকে বের হয়ে এলে সাংবাদিকরা তাদের পরিচয় জানতে চাইলে প্রথমে কোনো উত্তর দিতে চাননি। পরে একজন জানান, তার নাম রাসেল। পাপিয়া তার বোন। কেমন বোন জানতে চাইলে দ্রুত আদালতপাড়া ছেড়ে যান ওই দুই যুবক।

এ বিষয় ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের ডিসি প্রসিকিউশন (ডিসি) জাফর হোসেন গণমাধ্যমকে বলেন, নারী হাজতখানায় যুবক প্রবেশ আইন বহির্ভূত। এ বিষয়ে নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রোববার আদালতে যে মামলায় পাপিয়া ও তার স্বামীকে নেওয়া হয়েছিল সেটি গত বছরের ৪ আগস্ট করা হয়। দুদক ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১-এ সংস্থার উপপরিচালক শাহীন আরা মমতাজ মামলাটি করেন। এতে পাপিয়া দম্পতির বিরুদ্ধে ৬ কোটি ২৪ লাখ ১৮ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আনা হয়।

আরও পড়ুন