শুক্রবার, ০১ Jul ২০২২, ০১:৩৪ পূর্বাহ্ন

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম চরম খেপেছেন ইস্টার্ন হাউজিংয়ের ওপর। এত বড় সাহস তাদের কীভাবে হলো তা জানতে চান তিনি।

মেয়র বলেন, ‘এ দেশের কি মা-বাপ বলে কেউ নেই? দেখার কেউ নেই?’ ইস্টার্ন হাউজিংয়ের যত প্রজেক্ট আছে, সব বন্ধ করতে বলেন তিনি।

রোববার স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে সমন্বয় সভায় এসব কথা বলেন মেয়র আতিকুল। উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় সরকার, পল্লি উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলামসহ দক্ষিণ সিটি, উত্তর সিটি, ওয়াসা, রাজউকসহ বিভিন্ন সংস্থার কর্তা ব্যক্তিরা।

অবশ্য প্রকল্প বন্ধ করার পক্ষে নন মন্ত্রী তাজুল ইসলাম। তিনি খালগুলো পুনরুদ্ধারের বিষয়ে সিটি করপোরেশনকে উদ্যোগ নিতে নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, ইস্টার্ন হাউজিংয়ের প্রকল্প বন্ধ করব না। তারা যে অনিয়ম করেছে সেটার জন্য তাদের সরে যেতে হবে। সিটি করপোরেশন এ কাজটা করবে। আমরা সিটি করপোরেশনের সঙ্গে আছি। আগামী বর্ষায় যাতে কোনো জলাবদ্ধতা না হয়।’

মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, ‘আজ একটি বিষয়ে দৃষ্টি না দিলেই নয়, মিরপুর বেড়িবাঁধে এত বড় ইস্টার্ন হাউজিং হলো, নাকের ডগায় ছয়টি খাল তারা বন্ধ করে দিয়েছে। এত বড় সাহস তাদের কীভাবে হলো? খাল বন্ধ করে দুই ফিট করে পাইপ দিয়েছে, আর এখানে ইস্টার্ন হাউজিং ব্যবসা করছে। খালগুলো নিজেরা উদ্ধার করে তাতে বেইলি ব্রিজ না দিয়ে দিলে প্রতিষ্ঠানটির সব প্রকল্প বন্ধ করে দেওয়ার কথা বলেন তিনি।

‘এখন তারা মনে করছে তারা কাজ করবে আর আমরা সরকারি টাকায় ব্রিজ বানাব; এটা হবে না। তারা তো ইনকাম করছে, এটা তাদের দায়িত্ব। মিরপুরের মতো মোহাম্মদপুরের বছিলাতেও খাল দখল করে স্থাপনা তৈরির অভিযোগ আনেন আতিক। বছিলায় খাল দখলের অভিযোগ তিনি তুলেছেন বেসরকারি ইউল্যাব বিশ্ববিদ্যালয়ের বিরুদ্ধেও। এগুলো কিন্তু আমাদের ভেঙে ফেলতে হবে।’

তাজুল ইসলাম বলেন, ‘ইস্টার্ন হাউজিংয়ের প্রকল্প বন্ধ করব না। তারা যে অনিয়ম করেছে সেটার জন্য তাদের সরে যেতে হবে। সিটি করপোরেশন এ কাজটা করবে। আমরা সিটি করপোরেশনের সঙ্গে আছি। আগামী বর্ষায় যাতে কোনো জলাবদ্ধতা না হয়।’

আরও পড়ুন