শুক্রবার, ০১ Jul ২০২২, ০৬:১৩ অপরাহ্ন

আগের চেয়ে দেশে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হলেও এখনো থেমে নেই চু’রি, ডা’কাতি ও ছি’নতাইয়ের মতো ঘটনা। হরহামেশাই এসব ঘটনার খবর মিলছে। ছি’নতাইকারী এতটাই বে’পরোয়া যে, তারা খু’ন করতেও দ্বিধা করছে না।

ব্যাটারি চালিত অটোরিকশায় যাত্রী সেজে উঠেছেন দুই ব্যক্তি। বিভিন্নস্থানে ঘুরে সুযোগ বুঝে চালকের চোখ ফাঁকি দিয়ে রিকশাটি নিয়ে মুহূর্তেই উধাও হয়ে গেলেন যাত্রীবেশী দুই চোর। এ সময় ভাড়ায় চালিত অটোরিকশা হারিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েছেন চালক মো. ইয়াছিন (১৪)।

রোববার (৬ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে লক্ষ্মীপুর পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণ মজুপুর গ্রামের পলোয়ান মসজিদ এলাকা থেকে তার অটোরিকশাটি চু’রি হয়ে যায়। এর আগে গত দেড় মাস থেকে পরিবারের হাল কাঁধে নিয়ে কিশোর বয়সে অটোরিকশা হ্যান্ডেল ধরে ইয়াছিন। সেটি চু’রি হয়ে যাওয়ায় চোখেমুখে অন্ধকার দেখছে সে।

ভুক্তভোগী ইয়াছিনের বাড়ি লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জ ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের চরভুতা গ্রামে।

ইয়াছিন জানান, রোববার (৬ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১১টার দিকে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার ভবানীগঞ্জের চৌরাস্তা বাজার থেকে তার অটোরিকশায় দুজন যাত্রী উঠে জেলা শহরে আসার জন্য। বিভিন্নস্থানে ঘুরিয়ে দুপুর দেড়টার দিকে তাকে নিয়ে আসে পৌরসভার ১১ নম্বর ওয়ার্ডের পলোয়ান মসজিদের পাশে।

সেখানে ওই যাত্রীরা নেমে চা পান করে। এ মসয় যাত্রীরা চালক ইয়াছিনকে পাশের একটি ভবন দেখিয়ে সেখানে পাঠায় একটি সাউন্ড বক্স আনার জন্য। সরল বিশ্বাসে সে তাদের কথামতো সেখানে যায়। এ সুযোগে যাত্রী-বেশী চোরেরা তার অটোরিকশাটি নিয়ে পালিয়ে যায়। মুহূর্তেই এমন ঘটনায় সে হতবিহ্বল হয়ে পড়ে। এরপর কান্নায় ভেঙে পড়ে সে।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে ইয়াছিন বলেন, গত দেড় মাস থেকে এলাকার জনি মেস্তুরী নামে একজনের কাছ থেকে অটোরিকশাটি ভাড়ায় নিয়েছি। দিনে ৫ থেকে ৬শ টাকা পাই। ৩০০ টাকা ভাড়া হিসেবে মালিককে দিয়ে দেই। বাকী টাকা দিয়ে সংসার চালাই।

অটোরিকশাটি এখন চোরে নিয়ে গেছে। মালিককে কি বুঝ দেব।

আরও পড়ুন