সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন

বরিশালে অনুষ্ঠিত হয়েছে ব্যতিক্রমী এক ‘ভোজন প্রতিযোগিতা।’ যারা বেশি খেতে পেরেছেন তারাই হয়েছেন প্রতিযোগিতার বিজয়ী। অংশগ্রহণকারীদের জন্য খাওয়ার পাশাপাশি ছিল পুরস্কারও।

শুক্রবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাতে বরিশাল নগরীর ভাটিখানা শরীফ বাড়ি এলাকায় প্রথমবারের মতো বেশি খাওয়া প্রতিযোগিতার আয়োজন করে স্থানীয়রা।

আয়োজকদের একজন টুনু শরীফ জানান, ভোজন প্রতিযোগিতায় দু’টি দল অংশ নেয়। একটি ‘চাচা গ্রুপ’ অপরটি ‘ভাতিজা গ্রুপ।’ চাচা দলের সদস্যদের বয়স ছিল ৫৫ থেকে ৬০ বছর। আর ভাতিজা দলের সদস্যদের বয়স ছিল সর্বোচ্চ ২৫ বছর। প্রত্যেক দলে ২০ জন করে সদস্য ছিল। তিনি (টুনু শরীফ) নিজে ছিলেন চাচা দলের অধিনায়ক।

ভাতিজা দলের অধিনায়ক সাইফুল ইসলাম জানান, প্রতিটি দলের জন্য ৪০ কেজি খিচুরি-গরুর মাংস রান্না করা হয়। রাত ১০টার পর শুরু হয় খাওয়ার প্রতিযোগিতা। প্রায় এক ঘণ্টার মধ্যে তারা (ভাতিজা) ৩৮ কেজি খিচুরি ও গরুর মাংস খেতে সক্ষম হন। প্রতিদ্বন্দ্বী চাচারা খেয়েছেন ৩২ কেজি খিচুরি-মাংস। ৬ কেজি বেশি খেয়ে ভোজন প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়েছেন ভাতিজারা।

খাওয়া শেষে ছিল পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে অতিথিরা চাচা-ভাতিজাদের হাতে ট্রফি তুলে দেন। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল পিবিআই’র পুলিশ সুপার আতিকুর রহমান, বরিশাল প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন, ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাবিবুর রহমানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

পুলিশ কর্মকর্তা আতিকুর রহমান বলেন, এই আয়োজনটি নামে প্রতিযোগিতা হলেও এর মাধ্যমে আনন্দ ছড়িয়েছে সবার মাঝে। এ ধরনের ব্যতিক্রমী আয়োজন পাড়া-মহল্লায় আয়োজিত হলে স্থানীয়ভাবে অপরাধও কমে আসবে।

চাচা দলের অধিনায়ক টুনু শরীফ বলেন, করোনার এই সময়ে মানসিকভাবে ভেঙে পড়া মানুষদের আনন্দ দেয়া ছিল আমাদের মূল উদ্দেশ্য। আমরা তাতে সফল হয়েছি। হারা-জেতা কোনো বিষয় না। আমাদের আয়োজন দেখে এলাকার সর্বস্তরের মানুষ আনন্দ করেছে।

আরও পড়ুন