শুক্রবার, ০১ Jul ২০২২, ০১:০৮ পূর্বাহ্ন

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে মোবাইল ফোন কিনে না দেওয়ায় শাহানাজ আক্তার তুবা (১৫) নামের এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শাহনাজ আক্তার তুবা কুষ্টিয়ার কুমারখালী উপজেলার নন্দলালপুর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের শাহীনুর রহমান শাহীনের কন্যা ও দুর্গাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

শনিবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা ৭টার দিকে এই আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে। স্কুল শিক্ষার্থী তুবা ঘরের আরার সাথে কাপড় বেঁধে গলায় পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। তুবাকে উদ্ধার করে কুমারখালী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে।

পারিবারিক ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বেশ কয়েকদিন যাবৎ তুবা তার বাবা মায়ের কাছে একটি স্মার্ট মোবাইল ফোন কিনে চেয়েছিল, মোবাইল কিনে দিতে অপারগতা প্রকাশ করায় অভিমানে আত্মহত্যা করে তুবা।

তুবার বাবা শাহীনুর রহমান বলেন, আমি ও আমার স্ত্রী দুজনেই ঢাকাতে গার্মেন্টসে চাকরি করি, আমার মেয়ে তুবা একটু মানসিকভাবে অসুস্থ ছিল, কিন্তু মোবাইলের জন্য যে মেয়ে এমন কাজ করবে কখনোই ভাবিনি।

নন্দলালপুর ইউনিয়নের ৩ নাম্বার ওয়ার্ডের মেম্বর মানিক সেখ জানান, তুবা খুব সহজ সরল মেয়ে ছিলো তবে, কিছুটা মানসিক ভারসাম্যহীন ছিল। এমন মৃত্যু আমাদের কারও কাম্য নয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কুমারখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুজ্জামান তালুকদার বলেন, তুবা নামের এক শিক্ষার্থী আত্মহত্যা করেছে, এ বিষয়ে কারো কোন অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই ইতোমধ্যে লাশ দাফন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন