সোমবার, ০৪ Jul ২০২২, ০৩:২১ পূর্বাহ্ন

সোমবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সংবাদিকদের এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘সারের দাম নিয়ে সরকার উভয় সংকটে রয়েছে। ভর্তুকি প্রায় ৪ গুণ বেড়ে যাওয়ায় উন্নয়ন কর্মকাণ্ড কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। সারের ভর্তুকি নিয়ে চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘এ বছর সারে যে পরিমাণ ভর্তুকি দিতে হবে তাতে আরেকটা পদ্মা সেতু নির্মাণ করা সম্ভব। তবে, সরকার প্রণোদনা দিয়ে তা সামাল দেওয়ার চেষ্টা করবে। না হলে খাদ্য পণ্যের দাম আরও বেড়ে যেতে পারে, যা সরকারের জন্য কঠিন পরিস্থিতি সৃষ্টি করবে।’

ড. রাজ্জাক বলেন, ‘সারের দাম বেড়ে যাওয়ায় ২০২১-২২ অর্থবছরে এ খাতে ২৮ হাজার কোটি টাকা ভর্তুকি দিতে হবে। ২০২০-২১ অর্থবছরে এর পরিমাণ ছিল ৭ হাজার ৭১৭ কোটি টাকা।’

তিনি বলেন, ‘সারের দাম বেড়ে যাওয়ায় বর্তমানে ভর্তুকি দাঁড়িয়েছে প্রতি কেজি ইউরিয়ায় ৮২ টাকা, টিএসপিতে ৫০ টাকা, এমওপিতে ৪১ টাকা এবং ডিএপিতে ৭৯ টাকা।’

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘এ বছর সরকারের ভর্তুকি খাতে বাজেট ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা। এখন আরও ১৯ হাজার কোটি টাকা অতিরিক্ত প্রয়োজন।’

কোভিড পরিস্থিতির কারণে সারা বিশ্বে সারের দাম এক বছরে বেড়েছে তিন গুণ। বাংলাদেশে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে বলে জানান মন্ত্রী।

আরও পড়ুন