বৃহস্পতিবার, ০৭ Jul ২০২২, ১২:৪৮ অপরাহ্ন

বিয়ের অনুষ্ঠানে যাওয়ার সময় ব’জ্রপাতে ১৭ জনের মৃত্যুর ঘটনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার একই পরিবারের নিহ’ত ছয়জনের মরদেহ বাড়ির উঠানে দাফন করা হয়েছে। নিহ’তদের স্বজনরা রাতেই তাঁদের দাফন কাজ সম্পন্ন করেছে।

ব’জ্রপাতে নি’হতরা হলেন, বরের বাবা চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নের জনতার হাট গ্রামের শরিফুল ইসলাম (৪২), দুলাভাই সদর উপজেলার চরবাগডাঙ্গা ইউনিয়নের গোঠাগ্রামের মো. সোহবুল (৩৫), ফুফু চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার ঝিলিম ইউনিয়নের জৈটকাপাড়া গ্রামের বেলিয়ারা বেগম (৩৪), ফুপা টিপু সুলতান (৪০), নানা নারায়ণপুর ইউনিয়নের মহারাজনগর ডাইলপাড়া গ্রামের মো. তোবজুল (৭০), নানি জমিলা বেগম (৬০), খালা ল্যাতন বেগম (৪৫), খালাতো ভাই মো. বাবলু (২২), মামা মো. সাইদুল (৪০), মামি টকিয়ারা বেগম (৩০), মামাতো ভাই মো. বাবু (১৫)। সূর্যনারায়ণপুর গ্রামের মো. কালুর ছেলে মো. আলম (৪৫), মো. মোস্তফার ছেলে মো. পাতু (৪০), বরের চাচাতো ভাই সূর্যনারায়ণপুর গ্রামের ধুলু মিয়ার ছেলে মো. সজীব (২২), মো. সাহালাল ওরফে বাবুর স্ত্রী মোছা মৌসুমি (২৫), সুন্দরপুর গ্রামের সেরাজুল ইসলামের ছেলে আসিকুল ইসলাম (২৪) ও ফেরিঘাটের লোক শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা ইউনিয়নের দক্ষিণ পাকা গ্রামের মৃত সহবুলের ছেলে মো. রফিকুল (৬০)।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে গিয়ে দেখা যায়, এক সঙ্গেই কবরগুলো প্রাচীর দিয়ে ঘেরার জন্য গর্ত করার হচ্ছিল। এ সময় কথা হয় মৃ’ত তোবজুল হকের ভাই তাজেমুল হকের সঙ্গে। তিনি বলেন, তাঁর পরিবারের ৭ জন ব’জ্রপাতে মা’রা গেছে। তবজুল ইসলামের বাড়ির সামনেই নিহ’ত ছয়জনের ম’রদেহ দাফন করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে রয়েছেন ভাই তোবজুল হক (৭০), তাঁর স্ত্রী জামিলা বেগম (৬২), মেয়ে ল্যাচন (৪০) তাঁর ছেলে বাবুল (২০) সাদিকুল ইসলাম (৩৫), তাঁর স্ত্রী টকিয়ারা বেগম (৩২)। এ ছাড়া অন্যত্র দাফন করা হয়েছে নাতি বাবুলের মরদেহ। তবজুল ইসলামসহ তাঁর পরিবারের ছয়জন নি’হত হওয়ায় বাড়িতে চলছে শোকের মাতম। তাজেমুল হক আরও জানান, গ্রামবাসীর সিদ্ধান্তে বুধবার রাতেই সবার ম’রদেহ দাফন করা হয়েছে বাড়ির উঠানেই।

এই বাড়িতে অবস্থানরত নি’হত তবজুলের নাতনি সেলিনা খাতুন জানান, এঘটনায় তার স্বামী সইবুর, তাঁর পিতা শরিফুল ইসলাম পাতু, নানা-নানি, মামা-মামি ও খালাসহ ৭ জন এই ম’র্মান্তিক ঘটনার শিকার হয়েছেন। এখন তাঁর আশ্রয়স্থল না থাকায় তিনি পরিবারের জন্য সরকারি সহায়তা কামনা করেছেন।

বর আবদুল্লাহ আল মামুনের বাড়িতে গিয়েও দেখা গেছে একই চিত্র। তাঁর পিতা শরিফুল ইসলামের মরদেহ দাফন করা হয়েছে বাড়ির পেছনে সীমানা প্রাচীরে।

একই গ্রামের প্রতিবেশী রবিউল ইসলাম জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জে ব’জ্রপাতে অধিকাংশ ম’রদেহ গুলি চু’রির ভয়ে বাড়ির আঙিনা অথবা উঠানেই দাফন করতে দেখা যায়। ব’জ্রপাতে নিহতদের কবর থেকে ম’রদেহ চু’রির আত’ঙ্ক থেকেই বাড়ির উঠানে সবার এক সঙ্গে নিরাপদ স্থান দেখেই দাফন করা হয়েছে।

অপরদিকে একই ইউনিয়নের ডাইলপাড়া গ্রামে বর আল মামুনের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায় সেখানেও চলছে শোকের মাতম। আল মামুন তার পিতাসহ ১৭ জন স্বজনকে হারিয়ে পাগলপ্রায়।

গতকাল বুধবার নৌকাযোগে সদর উপজেলার নারায়ণপুর থেকে বিয়ের অনুষ্ঠানে পার্শ্ববর্তী শিবগঞ্জ উপজেলার পাকা এলাকায় যাওয়ার সময় বজ্রপাতে ৫ জন মহিলাসহ ১৭ জনের মৃ’ত্যু হয়। এদের সকলের বাড়ি সদর ও শিবগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ জানান, নিহ’ত প্রত্যেকের পরিবারকে নগদ ২৫ হাজার করে টাকা দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া অসুস্থদের বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে তাঁদেরও সহযোগিতা করা হবে।

আরও পড়ুন