শনিবার, ১৪ মে ২০২২, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন

হিজাব বিতর্কে ভারতের দক্ষিণের রাজ্য কর্ণাটকে বন্ধ হয়ে যাওয়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো খুলতে শুরু করেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছাত্রীদের হিজাব পরিধান নিয়ে মুখ খুলেছেন আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীরা। সারা দেশের ছাত্রীরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যেন হিজাব পরিধান করতে পারেন, তারা এই স্বাধীনতা চান।

তারা বলেন, ‘আমাদের মৌলিক অধিকার কেড়ে নেয়া হচ্ছে। আইন আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছে আমরা পছন্দমতো পোশাক পরিধান করব। তাহলে হিজাব পরার স্বাধীনতা নেই কেন?’

ছাত্রীরা দাবি করেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হিজাব পরিধানের সুযোগ দেয়া উচিৎ। কেননা, শিখ ভাইয়েরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই হোক কিংবা অন্য কোথাও; সব জায়গায়ই তারা পাগড়ি পরেন। তাহলে শুধু হিজাব খোলার জন্য কেন মুসলিম ছাত্রীদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে?

আফরিন নামের এক ছাত্রী বলেন, ‘হিজাব নিরাপত্তা, তবে কাউকে যদি জোর করে তা পরানো হয়, তিনি চাইলে নাও পরতে পারেন।’ ফাতিমা নামে আরেক ছাত্রী বলেন, ‘হিজাবকে ইউপি নির্বাচনের সাথে যেন না মেলানো হয়। এটি আমাদের মৌলিক অধিকারের অন্তর্ভুক্ত। যেন আমরা হিজাব পরার মাধ্যমে আমাদের ধর্মের অনুসরণ করতে পারি। হিজাবকে আইনের সাথে সম্পৃক্ত না করা উচিৎ।’

এ বিষয়ে আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর প্রফেসর মোহাম্মদ ওয়াসিম বলেন, ‘আদালতে হিজাব ইস্যুর শুনানি জারি রয়েছে। এজন্য এ নিয়ে মন্তব্য করতে পারছি না।’ একইসাথে তিনি জানান, তাদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোনো ড্রেসকোড নেই, শিক্ষার্থীরা পছন্দমতো পোশাক পরতে পারেন।

সূত্র : ইটিভি ভারত

আরও পড়ুন