মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৮:৩৮ পূর্বাহ্ন

স্বপ্নের পদ্মা সেতুর দুয়ার খুলেছে। শনিবার (২৫ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এই সেতুর উদ্বোধনের পর ২৬ জুন থেকে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। রোববার সকাল থেকেই সেতুতে ভিড় করছে সকল শ্রেণিপেশার মানুষ। কেউ নিজস্ব পরিবহনে, কেউ হেটে কিংবা ব্যক্তিগত পরিবহনে সেতু পারাপার হচ্ছেন।

তবে এদিন সকাল থেকেই সেতুপ্রান্তে প্রচুর মোটরসাইকেল লক্ষ্য করা গেছে। অধিকাংশই এসেছেন পদ্মা সেতু ঘুরে দেখতে। তবে কিছু মোটরসাইকেল ভাড়ায়ও যাত্রী পারাপার করছেন। পদ্মা সেতু পার হতে ভাড়ায় চালিত সেসকল মোটরসাইকেলে জনপ্রতি দিতে হচ্ছে ২০০ টাকা। দুইজন উঠলে ৪০০ টাকা। তবে দুই জন যাত্রী ছাড়া মোটরসাইকেলগুলোও যাত্রী নিচ্ছে না। কেউ একা যেতে চাইলে তাকে গুনতে হচ্ছে ৪০০ টাকা।

এই প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে মোশাররফ নামের এক মোটরসাইকেল চালক জানান, ‘টোল ভাড়া ১০০ টাকা, বাকি ১০০ টাকা মোটরসাইকেলের ভাড়া। আবার বেশিরভাগ সময় ফিরে আসতে হবে খালি। আবার তেল খরচ তো আছেই। সবকিছু হিসাব করে ২ জন যাত্রী নেওয়া হচ্ছে এবং জনপ্রতি ভাড়া নেওয়া হচ্ছে ২০০ টাকা করে।’

এদিকে রোববার পদ্মা সেতুতে দেখা গেছে, কেউ গাড়ি থেকে নেমে হাঁটাহাঁটির পাশাপাশি তুলেছেন ছবি। শাড়ি পরা কয়েকজন নারী নেচে-গেয়ে টিকটক ভিডিও করছেন। অনেকেই আবার হেঁটেই সেতু পার হয়েছেন। ভিডিওকলে স্বজনদের সেতু দেখানোরও দৃশ্য দেখা গেছে।

এদিকে সেতুতে ঘুরতে এসে অনেকেই বলছেন, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের ঘোষণার পর থেকেই ঠিক করেছি প্রথম দিনই সেতু দেখতে আসব। সারাদিন ঘুরব, তারপর বিকেলে ফিরে যাব।

তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর হতে চলেছে প্রশাসন। আগামীকাল (সোমবার) থেকে পদ্মা সেতুতে নেমে ছবি তুললে জরিমানার কবলে পড়তে হবে। একই সঙ্গে বাইকের গতি কিংবা নিয়ম না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) উম্মে হাবিবা ফারজানা। রোববার (২৬ জুন) দুপুরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এই তথ্য জানান

আরও পড়ুন