সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১২:৩১ পূর্বাহ্ন

প্রেমিকের সঙ্গে পালাতে গিয়ে বিপত্তিতে পড়েছিল এক কিশোরী। তাকে অপহরণের কথা বলে পরিবারের কাছে মুক্তিপণ দাবি করা হয়। এমনকি, তাকে পতিতালয়ে বিক্রির হুমকিও দেওয়া হয়। অভিযান চালিয়ে ওই কিশোরী ও তার প্রেমিককে উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (২৪ জুলাই) পুলিশ সদর দপ্তর থেকে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) মো. সোহেল রানা জানিয়েছেন, রাজবাড়ী ও ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের সমন্বিত অভিযানে ওই কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ঈদের দিন সন্ধ্যায় এক কিশোরীকে ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা থেকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে এবং মুক্তিপণ না দিলে তাকে দৌলতদিয়া ঘাটে পতিতাপল্লিতে বিক্রি করে দেওয়া হবে বলে হুমকি দেওয়া হয়েছে—এ তথ‌্য পেয়ে ওই কিশোরীকে উদ্ধারের জন্য পুলিশ সদর দপ্তর থেকে মুক্তগাছা থানার ওসি মো. দুলাল আকন্দকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। মুক্তাগাছা থানার ওসি প্রযুক্তির সহায়তা নিয়ে প্রাথমিক তদন্তে জানতে পারেন, মেয়েটির অবস্থান রাজবাড়ী জেলার পাংশা থানার অন্তর্গত একটি এলাকায়।

পুলিশ সদর দপ্তর পাংশা থানার ওসি মো. মাসুদুর রহমানকে মুক্তাগাছা থানার ওসির সঙ্গে সমন্বয় করে অপহৃত কিশোরীকে উদ্ধার করতে নির্দেশ দেন। কিশোরীকে উদ্ধারের জন্য পাংশা থানার ওসি এবং এসআই মো. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে দুটি দল কাজ শুরু করে। পরে পুলিশের সাইবার টিম ও গোয়েন্দা পুলিশসহ একাধিক দলের প্রচেষ্টায় ওই কিশোরীকে শুক্রবার (২৩ জুলাই) সন্ধ্যায় রাজবাড়ীর পাংশা থানাধীন সরিষা ইউনিয়নের পিড়ালী পাড়া গ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয়।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মেয়েটিকে উদ্ধারে সহযোগিতা করেন। উদ্ধার অভিযানসহ সার্বিক বিষয় তত্ত্বাবধান করেন রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার এমএম শাকিলুজ্জামান এবং ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামান।

উদ্ধারের পর প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ওই কিশোরী জানিয়েছে, কয়েক মাস আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ‌্যমে পরিচয়ের সূত্র ধরে দুর্জয়ের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সম্প্রতি বাড়িতে না জানিয়ে দুর্জয়ের সঙ্গে পালিয়ে যায় সে। মেয়েটিকে প্রথমে নিজের বাড়িতে নিয়ে যায় দুর্জয়। সেখান থেকে তার নানাবাড়িতে রেখে আসে।

স্থানীয় একটি দুষ্টুচক্র মেয়েটির পরিবারের মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে অপহরণের কথা বলে মুক্তিপণ আদায় করতে চেয়েছিল। এ বিষয়ে তদন্ত করে শিগগিরই অপরাধীদের খুঁজে বের করে আইনের আওতায় আনা হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আরও পড়ুন