শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩২ পূর্বাহ্ন

দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদনের সক্ষমতা বাড়ার পর লোডশেডিং মোটামুটি বিদায় নিয়েছিল। বিদ্যুৎ–বিভ্রাট হতো না বললেই চলে। তবে সম্প্রতি সারাদেশে বিদ্যুৎ সরবরাহ দেশব্যাপী বড় মাত্রায় কমিয়ে দেয়া হয়েছে।যার ফলে ভয়াবহ লোডশেডিংয়ের কবলে পড়েছে রাজধানীসহ সারা দেশ। এমন পরিস্থিতিতে দেশের চলমান লোডশেডিং মোকাবিলায় বিদ্যুৎ ব্যবহারে নতুন বেশ কিছু সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (৭ জুলাই) দুপুরে এ বিষয়ে জরুরি এক সভায় শেষে প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদবিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিদ্যুৎ ও গ্যাস পরিস্থিতি পর্যালোচনাবিষয়ক এক সভা হয়েছে। সেখানে বেশ কিছু সিদ্ধান্ত হয়েছো তিনি বলেন, সবাইকে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী হতে হবে। বাজার-শপিংমল, মসজিদ-অফিস এবং আদালতে এসির তাপমাত্রা ২৫ ডিগ্রির নিচে রাখা যাবে না। আলোকসজ্জা করা যাবে না। দোকানপাট ও শপিংমল তাড়াতাড়ি বন্ধ করতে হবে।

এছাড়া বিদ্যুতের অপচয় রোধে বিয়ে-শাদীসহ রাতে যেসব অনুষ্ঠান হয় সেগুলো সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে শেষ করতে হবে বলেও জানান তিনি । তৌফিক-ই-এলাহী বলেন, বিয়ে-শাদীসহ রাতে যেসব অনুষ্ঠান হয় সেগুলো সন্ধ্যা ৭টার মধ্যে শেষ করতে হবে।

এ ছাড়া অফিসের কর্ম ঘণ্টা কমিয়ে এনেও বিদ্যুৎ সাশ্রয় করা যেতে পারে। তিনি আরো বলেন, বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সংকট শুধু বাংলাদেশে নয়, উন্নত দেশগুলোতেও রয়েছে। জাপানের আয় আমাদের চেয়ে ২০ শতাংশ বেশি। সেখানেও লোডশেডিং হচ্ছে। ব্রিটেন, অস্ট্রেলিয়াসহ উন্নত দেশগুলোতেও লোডশেডিং হচ্ছে। সেসব দেশের তুলনায় বাংলাদেশ ভালো আছে।

চলমান এই লোডশেডিং আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চালিয়ে নিতে পারলে বিদ্যুৎ ঘাটতি অনেকটাই মেটানো সম্ভব হবে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন