শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৬ পূর্বাহ্ন

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের মাদলা গ্রামের মৃত আহম্মেদ প্রামানিকের ছেলে আবু সাঈদ। গ্রামের অল্প বয়সী নারীদের কাছে এক মূ’র্তিমান আ’তঙ্কের নাম সে। প্রতিবেশিদের স্ত্রী -সন্তান, চাচী, খালা, অল্প বয়সী নারী কেউ রে’হাই পা’য়না তার কু’নজর থেকে। লো’কলজ্জার ভ’য়ে অধিকাংশ মহিলারা এতদিন মুখ না খুললেও আবু সাঈদের উ’ত্যক্তে অ’তিষ্ঠ হয়ে প্রতিবেশি এক গৃহবধূর থানায় এজাহার দায়েরের পর থেকে একে একে বেরিয়ে আসছে আবু সাঈদের কু’কির্তির চঞ্চ’ল্যকর ফি’রিস্তি।

সরেজমিনে গেলে ভুক্তভোগীর দেবর মালেক প্রামানিক, গ্রাম প্রধান নুরুল ইসলাম ফারাজি, আব্দুল আজিজ সহ মাদলা গ্রামের শতাধিক নারী-পুরুষ সাংবাদিকদের জানান, ‘ ল’ম্পট আবু সাঈদের প্রধান নে’শাই হচ্ছে গভীর রাতে প্রতিবেশির ঘরে উকি মেরে স্বামী স্ত্রীর অ’ন্তর’ঙ্গ দৃ’শ্য দেখা। রাত হলেই চু’পিচু’পি গিয়ে দরজা, জানালা দিয়ে উকি মা’রে অথবা টিনের বেড়া ফুটো করে চোখ লাগিয়ে ভিতরের দৃ’শ্য দেখে।

এছাড়া ল’ম্পট সাঈদ গ্রামের অল্প বয়সী নারীদের বিভিন্ন ভাবে কুপ্র’স্তাব দেয় এবং তার যৌ’ন কামনা চ’রিতার্থ করতে সুযোগ বুঝে যাকে তাকে ঝাপ’টে ধরে। এমনকি তার বি’কৃত কামনা থেকে রেহাই পায়নি তার আপন চাচীও বলে জানান একজন গ্রাম প্রধান। এ বিষয়ে তাকে এলাকার প্রধানরা বিভিন্ন সময় শালিস করে কয়েক দফা শাসন করলেও সে নিজেকে না শু’ধরিয়ে আরও বেপ’রোয়া হয়ে উঠেছে বলে অভিযোগ করেন এলাকাবাসী।

এদিকে মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পোতাজিয়া ইউনিয়নের মাদলা মধ্যপাড়া গ্রামের সোবাহান প্রামাণিকের স্ত্রী রত্না খাতুনকে দীর্ঘদিন ধরে উ’ত্যক্ত করে আসছে প্রতিবেশি লম্পট আবু সাঈদ (৫৩)। বিষয়টি রত্না খাতুন তার স্বামী ও শাশুড়ীকে জানালে তারা আবু সাঈদের পরিবারকে অবগত করলে সাঈদ আরো ক্ষি’প্ত হয়ে ওঠে।

গত ৫ জুলাই রাতে রত্না খাতুন বাড়ির টিউবওয়েলে পানি আনতে গেলে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকা আবু সাঈদ পিছন থেকে ঝা’পটে ধরে। পরে গৃহবধূ রত্না খাতুনের চিৎকার করলে স্বামী, শশুর-শাশুরি ও প্রতিবেশিরা এগিয়ে আসলে আবু সাঈদ দ্রুত পা’লিয়ে যায়। এরপর গ্রাম্য প্রধানদের কাছে বিচার চাইলে তারা আবু সাঈদের বিচার দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। পরে ভুক্তভোগী রত্না খাতুন মঙ্গলবার (১২ জুলাই) দুপুরে শাহজাদপুর থানায় একটি এজাহার দায়ের করেন।

অভিযোগের বিষয়ে আবু সাঈদকে জিজ্ঞাসা করলে, তিনি জানান, ‘আমার বিরুদ্ধে এমনি সবাই অ’পপ্রচার করছে। আমি এ ধরনের কাজ করিনি।’ এ ব্যাপারে শাহজাদপুর থানার এসআই আনিসুর রহমান জানান, ‘বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগী গৃহবধূ রত্না খাতুন বাদী হয়ে থানায় এজাহার দায়ের করেছেন। আমরা তদন্ত করে ব্যবস্থা নিব।’

আরও পড়ুন