সোমবার, ২৮ নভেম্বর ২০২২, ১২:০২ পূর্বাহ্ন

স্ত্রীকে হ’ত্যা করতে চাপাতি নিয়ে শ্বশুরবাড়িতে হানা দেওয়া জামাই সুজন দাশকে (৪২) এক ঘণ্টার শ্বা’সরু’দ্ধকর অভিযানে গ্রে’ফতার করেছে পু’লিশ। পু’লিশের উপস্থিতি দেখে সুজন নিজেও আ’ত্মহ’ত্যার চেষ্টা করেন। কিন্তু পু’লিশের কৌ’শলগত কারণে গ্রে’ফতার হয়েছেন তিনি। বেঁচে গেছে কটি প্রা’ণ।

নগরীর ডবলমুরিং থা’নার পূর্ব গোসাইলডাঙ্গা এলাকায় শনিবার রাত ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তার কাছ থেকে দুটি চাপাতি উ’দ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় তার বিরুদ্ধে হ’ত্যাচেষ্টা, আ’ত্মহত্যার চেষ্টা ও হু’মকি প্রদর্শনের অপরাধে মা’মলা করা হয়েছে। তাকে রোববার আদালতে চালান দেওয়া হয়।

জানা গেছে, ১৩ বছর আগে সুজনের সঙ্গে তপন দাশের মেয়ে সুতৃষ্ণা দাশের বিয়ে হয়। তাদের ১০ বছর ও ১০ মাস বয়সি দুই মেয়ে রয়েছে। নগরীর আসকারদীঘি এলাকায় সুজন পরিবার নিয়ে থাকেন। পুরোনো গাড়ির ব্যবসা করেন। সম্প্রতি তিনি প’রকীয়ায় করতে গিয়ে স্ত্রীর কাছে ধরা পড়েন। এ নিয়ে দুজনের তুমুল ঝ’গড়া হলে সুতৃষ্ণা পূর্ব গোসাইলডাঙ্গার বাবার বাড়ি চলে আসেন।

এতে ক্ষি’প্ত হয়ে সুতৃষ্ণা ও তার বাবা-মাকে হ’ত্যা করার পরিকল্পনা করেন তিনি। ঘটনার রাতে দুই চাপাতি নিয়ে শ্বশুরবাড়ির পঞ্চম তলায় ওঠার সময় তাকে দেখে ফেলেন সুতৃষ্ণা। তাড়াতাড়ি ঘরের দরজা বন্ধ করে দেন তিনি। সুজন প্রথমে দরজা ধা’ক্কা দেন। কিন্তু ভেতর থেকে না খোলায় দরজায় এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এ সময় পু’লিশকে খবর দেওয়া হয়।

ডবলমুরিং থা’নার ওসি মোহাম্মদ মহসীন জানান, সুজন চা’পাতি নিয়ে তাদের টিমের সদস্যদের দিকেও তেড়ে আসার চেষ্টা করেন। আবার নিজের গলায় চাপাতি চালিয়ে আ’ত্মহ’ত্যারও হু’মকি দেন।

আরও পড়ুন