বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০১:৩৯ অপরাহ্ন

পদ্মা নদীর মৈনট ঘাটে ডুবে বুয়েটের স্থাপত্য বিভাগের শিক্ষার্থী তারিকুজ্জামান সানির মৃ’ত্যুর ঘটনায় করা হ’ত্যা মামলায় ১৫ জনের তিন দিন করে রি’মান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শনিবার ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট কাজী আশরাফ উজ্জামানের আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

আসামিরা হলেন শরীফুল হোসেন, শাকিল আহম্মেদ, সেজান আহম্মেদ, মো. রুবেল, মো. সজীব, মো. নুরুজ্জামান, মো. নাসির, মো. মারুফ, মো. আশরাফুল আলম, মো. জাহাঙ্গীর হোসেন লিটন, মো. নোমান, মো. জাহিদ, এ টি এম শাহরিয়ার মোমিন, মো. মারুফুল হক ও রোকনুজ্জামান ওরফে জিতু।এদিন ১৫ আসামিকে আদালতে হাজির করা হয়।

এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে তাদের সাত দিন করে রি’মান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা উপ পরিদর্শক মো. শামছুল আলম। অন্যদিকে আসামিপক্ষ রিমান্ড বাতিল ও জামিন চেয়ে আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে প্রত্যেকের তিন দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ১৪ জুলাই একসঙ্গে ১৫/১৬ যুবক পদ্মা নদীতে ঘুরতে যায়। সন্ধ্যার পর সানি নামে ওই বুয়েট শিক্ষার্থী নি’খোঁজ হয়। রাতেই স্থানীয়দের দেওয়া খবরে ঘটনাস্থলে পৌঁছে দোহার থানা পুলিশ। এরপর ঘটনাস্থলে পৌঁছে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল। শুক্রবার সকালে সানির মরদেহ উদ্ধার করে ফায়ার সার্ভিস ডুবুরিদল। সুরতহাল শেষে ওই বুয়েট শিক্ষার্থীর ম’রদেহ তদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ম’র্গে পাঠানো হয়। এ ঘটনায় শুক্রবার বিকেলে সানির বড় ভাই হাসাদুজ্জামান ১৫ জনের বিরুদ্ধে একটি হ’ত্যা মা’মলা দায়ের করেন।

আরও পড়ুন