বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:৫৮ অপরাহ্ন

লটারির টিকিট কেটে রাতারাতি কোটিপতি হলেন চাষির ছেলে। ঘটনায় রীতিমতো হইচই পড়ে গিয়েছে ভারতের মুর্শিদাবাদের হরিহরপাড়া ব্লকের রুকুনপুর মাহাতো পাড়ায়। ওই গ্রামের বাসিন্দা বছর ৩৫-এর বুদ্ধদেব মাহাতো ১৫০ টাকার টিকিট কেটে হলেন কোটিপতি।

প্রতিদিন যে লটারি কাটার জন্য বাবা, মায়ের গঞ্জনা শুনতে হত, সেই লটারির টিকিট কেটেই কোটিপতি হলেন বুদ্ধদেব মাহাতো। ছেলে এভাবে কোটিপতি হওয়ায় হাসি ফুটেছে দরিদ্র বাবা, মায়ের মুখেও। যদিও কোটিপতি হওয়ার খবর পেয়েই আনন্দে আত্মহারা বুদ্ধদেবের খোঁজ মিলছিল না। ভয় পেয়ে পুলিশের দ্বারস্থ হয় পরিবার। তারপর হরিহরপাড়া থানায় গিয়েই কোটিপতি ছেলেকে খুঁজে পান বৃদ্ধ বাবা, মা।

জানা গেছে, শুক্রবার হরিহরপাড়ার রুকুঁনপুর মোড়ে একটি লটারির দোকান থেকে ডিয়ার লটারির টিকিট কেটেছিলেন বুদ্ধদেব মাহাতো। তারপর আর পাঁচটা দিনের মতোই সন্ধ্যায় বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা সেরে বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন। ঠিক তখনই লটারির দোকানদার তাঁর খোঁজ করে এলাকায় আসেন এবং জানান, তিনি কোটিপতি হয়ে গিয়েছেন। সেই খবর শুনেই আনন্দে আত্মহারা হয়ে পড়েন বুদ্ধদেব।

বুদ্ধদেবের বাবা স্বপন মাহাতো জানান, অন্যের জমিতে চাষের কাজ করেন বুদ্ধদেব। সেরকম উপার্জন হয় না। ফলে প্রায় দিনই ঘর থেকে টাকা চুরি করে নিয়ে গিয়ে লটারি কাটত বুদ্ধদেব। লটারি কাটা নিয়ে বাড়িতে অশান্তিও হত। মায়ের থেকেও টাকা নিয়ে লটারি কাটতে যেত। এভাবে লটারি লেগে যাবে তাঁরা কেউই ভাবতে পারেননি। বুদ্ধদেবের লটারি কাটার বিষয়টি গত ৬-৭ মাস ধরে তাঁর পরিবার জানলেও আরও আগে থেকেই তিনি লটারি কাটতেন বলে জানিয়েছেন স্বপনবাবু।

ছেলের কোটিপতি হওয়ার খবর প্রথমে তাঁরা লোকের মুখেই শুনেছেন। স্বপনবাবু বলেন, “লটারি বিক্রেতা, আশপাশের লোকেরা রাতে মোটরবাইক নিয়ে এসে ছেলের খোঁজ নিচ্ছিল। তাঁদের থেকেই জানতে পারি, লটারিতে ১ কোটি টাকা উঠেছে। ছেলে কোথায় গেল ভয় পেয়ে আমরা থানায় যাই। সেখানে ছেলেও গিয়েছিল।” লটারির টাকা সুষ্ঠুভাবে পেতে পুলিশেরই সাহায্য নিচ্ছেন তাঁরা।

বুদ্ধদেবের সঙ্গে রুকুঁনপুর মোড়ের ওই লটারির দোকানের বিক্রেতাও প্রথমবার তাঁর দোকানের টিকিটে কোটি টাকা লটারি লাগার আনন্দ পেলেন। তিনি জানান, বিক্রি না হওয়া টিকিটগুলো কোম্পানিকে ফেরত দিয়ে দেন। সেগুলিতে অনেক সময় কোটি টাকা লেগেছে। কিন্তু বিক্রি করা টিকিটে কোটি টাকা লাগার ঘটনা এটাই প্রথম।বুদ্ধদেব মাহাতো শুক্রবার সন্ধ্যায় ২৫ টাকা দামের ৫টি ডিয়ার লটারির টিকিট কেটেছিলেন। সেগুলির মধ্যেই একটিতে কোটিপতি হলেন তিনি।

আরও পড়ুন